নিউজ ডেস্ক : রাষ্ট্রসংঘের পুরস্কার ছিনিয়ে নিল ‘পতঞ্জলি’ আয়ুর্বেদ। পতঞ্জলি আয়ুর্বেদের আচার্য বালকৃষ্ণ জেনেভায় আয়োজিত বিশ্বব্যপী এক অনুষ্ঠানে এই পুরস্কার পান। শনিবার রাষ্ট্রসংঘের তরফ থেকে ‘UNSDG 10 Most Influential People in Healthcare Award’ পান বালকৃষ্ণ।

সম্মান পাওয়ার পর বালকৃষ্ণ ট্যুইট করেন, এই সম্মান পেয়ে তিনি গর্বিত। তিনি লেখেন, “আমি গর্ব অনুভব করি কারণ আমি এই সংস্কৃতিকে ভারতে প্রতিস্থাপন করতে সক্ষম হয়েছি। সেই সঙ্গে সঙ্গে গোটা বিশ্ব এই সংস্কৃতিকে স্বাগত জানিয়েছে।”

“আমি আমার জ্ঞাতিদের প্রতিও কৃতজ্ঞ কারণ তাদের জন্যই আমি রাষ্ট্রসংঘে দাঁড়িয়ে আমার বক্তব্য রেখে আসতে পেরেছি। আমি আপনাদের ভালবাসা ও অনুভূতিতে পরিপূর্ণ।”

পতঞ্জলি আয়ুর্বেদ লিমিটেডের কর্ণধার তথা যোগ গুরু বাবা রামদেবের ঘনিষ্ঠ আচার্য বালকৃষ্ণ। পতঞ্জলি আয়ুর্বেদ ইন্সটিটিউশনের জন্য সম্মান পেয়ে বালকৃষ্ণ সমগ্র বিশ্বের সক্রিয় যোগাসনকারী এবং আয়ুর্বেদাচার্যদেরও সম্মান জানিয়েছেন। তিনি টুইটে লিখেছেন, “আমি এই সম্মান পেয়ে গর্বিত। @UNSDGHealth Award to ten most influential people in Healthcare on behalf of Patanjali Group of Institutions. আমি এই সম্মানটি সমগ্র বিশ্বের সক্রিয় যোগাসনকারী এবং আয়ুর্বেদাচার্যদের উৎসর্গ করতে চাই।”

এদিন রাষ্ট্রসংঘের মঞ্চে যে ৫ জন মূল বক্তা ছিলেন, তাদের মধ্যে ছিলেন বালকৃষ্ণ। বাকি চারজন হলেন – রান্দ্রি ওস্ত্রা, UNICEF-এর এক্সিকিউটিভ এডিটর হেন্রিয়েত্তা এইচ ফোর, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান ডঃ তেদ্রস আধানম ঘেব্রেওয়েচসাস, এবং অবি লি।

এই সম্মান পেয়ে বাবা রামদেব জানিয়েছেন, আচার্য বালকৃষ্ণ সারা ভারতের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। বিশ্ব স্বাস্থ্যের ইতিহাসে কিভাবে যোগাসন, আয়ুর্বেদ এবং ভারতের প্রাচীন চিকিৎসা পদ্ধতি অবলম্বন করে রোগমুক্তি ঘটান যায় পতঞ্জলি সেই বিষয়েই নিজের অবদান রেখেছে।