স্টাফ রিপোর্টার, দিঘা: রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিল বিষধর সাপ। বিষধর হলেও ছোবল মারেনি বা সেই সম্ভাবনাও ছিল না। সেই কারণে সেই সাপের প্রাণ বাঁচানোর চেষ্টা করাই কাল হল দিঘার বাস চালকের।

সাপ বাঁচাতে গিয়ে ঘটে গেল মর্মান্তিক দুর্ঘটনা। যার কারণে প্রাণ হারালেন এক মহিলা। একই সঙ্গে ওই ঘটনায় জখম হয়েছেন আরও নয় জন। যাদের মধ্যে অএঙ্কেরই অবস্থা আশঙ্কাজনক।

আরও পড়ুন- মাদকের নেশার মতো ছড়াচ্ছে শিকার উৎসব, আশঙ্কা বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ সংগঠনগুলির

বুধবার সকালের দিকে ঘটনাটি ঘটেছের সৈকত শহর দিঘায়। এদিন সকালে দিঘা স্টেশনের কাছে একটি বাসের সঙ্গে অটোর মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। যার কাড়নে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয় যাত্রীবাহী অটোটি। সেই অটোতেই সওয়ার ছিলেন মৃতা মহিলা সহ অন্যান্য সকল জখম যাত্রীরা।

মৃত ওই মহিলার নাম শ্রাবন্তী মণ্ডল। ৩৫ বছরের ওই মহিলার বাড়ি উত্তর ২৪ পরগণা জেলার গোবরডাঙার বেলেনি এলাকায়। প্রত্যক্ষদর্শী এবং পুলিশ সুত্রে জানা গিয়েছে, এদিন খুব সকালে একটি অটো দিঘা থেকে মোহনা যাওয়ার সময় সামনে দাঁড়িয়ে পড়া বাসের পেছনে সজোরে ধাক্কা মারে। দুর্ঘটনাটি ঘটেছে নিউ দিঘার স্টেশন থেকে সামান্য দূরে। সেই অটোর যাত্রী ছিলেন ওই মহিলা ও তাঁর স্বামী, মেয়ে সহ ৯ জন।

জানা গিয়েছে মঙ্গলবার ৫০ জনের একটি দল বাস ভাড়া করে দিঘা বেড়াতে এসেছেন। এসে তাঁরা নিউ দিঘার একটি হোটেলে ওঠেন। এদিন সকালে দল বেঁধে মোহনায় ঘুরতে যাওয়ার জন্য বেরিয়েছিলেন। কিন্তু অটোটি এত দ্রুত গতিতে ছুটছিল যে সামনে দাঁড়িয়ে পড়া বাসটিকে দেখেও নিয়ন্ত্রণ করতে পারেনি।

আরও পড়ুন- মুসলিম শিক্ষককে হেনস্থা: হিন্দু সংহতির কড়া সমালোচনা দিলীপের

স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছে, যাত্রীবোঝাই বেসরকারী বাসটি নিউ দিঘা ছেড়ে যাওয়ার সময় তার সামনে একটি সাপ এসে পড়ে। তখনই বাসের চালক ব্রেক কষে দাঁড়িয়ে যায়। আর পেছনে থাকা অটো বেপরোয়া গতিতে থাকায় নিয়ন্ত্রণ করতে পারেনি।

বাসের পেছনে ধাক্কা খেয়ে অটোটি ছিটকে পড়ে। স্থানীয়রা দ্রুত তাঁদের উদ্ধার করে। সবার আঘাত সামান্য হলেও মহিলার মাথায় ও পায়ে গুরুতর চোট লাগে। তাঁকে উদ্ধার করে সামান্য দূরের দিঘা স্টেট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। তবে সেই সুযোগে অটোটি পালিয়েছে বলে জানা গিয়েছে।