স্টাফ রিপোর্টার, হাওড়া: নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে একেবারে ডিভাইডার টপকে বড়সড় দুর্ঘটনা ঘটল হাওড়ার কোনা এক্সপ্রেসওয়েতে৷ একটি কন্টেনার ও একটি ম্যাটাডোরের রেষারেষির ফলে এই দুর্ঘটনা বলে জানা গিয়েছে৷ যদিও এই ঘটনায় এখনও কোনও হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি৷ তবে দুর্ঘটনার পর কোনা এক্সপ্রেসওয়েতে ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়৷

স্থানীয় সূত্রে খবর, কলকাতার দিক থেকে সাঁতরাগাছি সেতুর দিকে যাচ্ছিল গাড়ি দু’টি৷ কিন্তু হাওড়া কোনা এক্সপ্রেসওয়েতে জানা গেট স্টপেজের কাছে এই দুর্ঘটনাটি ঘটে৷ এলাকাবাসীর দাবি, দুটি গাড়িই নিজেদের মধ্যে রেষারেষিতে মগ্ন ছিল৷ তাই স্বাভাবিক ভাবেই দু’টি গাড়ির গতিও তুলনামূলক বেশি ছিল৷ অভিযোগ, আচমকা কন্টেনারটি ছোট ম্যাটাডোরটিকে ডান দিকে চেপে দেয়৷ ফলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ডিভাইডার টপকে অন্য লেনে চলে যায় ম্যটাডোরটি৷ অন্যদিকে, কন্টেনারটি নিজের গতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে না পেরে ডিভাইডার পার হয়ে পাশের লেনে চলে যায়৷

আর এই ঘটনার পর একেবারে স্তব্ধ হয়ে পড়ে কোনা এক্সপ্রেসওয়ে৷ ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয় কোনা এক্সপ্রেসওয়েতে৷ যাত্রীদের দাবি, এই দুর্ঘটনার জেরে এক ঘণ্টারও বেশি সময় তাদের আটকে থাকতে হয়৷ পরে ঘটনাস্থলে ক্রেন এনে গাড়ি দু’টি সরানো হয়৷ এরপর ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হয় যান চলাচল৷ নিত্যযাত্রীদের অভিযোগ, সকাল থেকে বনধের কারণে যাতায়াতের ক্ষেত্রে বেশ বেগ পেতে হয় যাত্রীদের৷ তবে বনধের পর যান চলাচল স্বাভাবিক হলেও এই দুর্ঘটনার জেরে কোনা এক্সপ্রেসওয়ে কার্যত স্তব্ধ হয়ে পড়ে৷ হেনস্থার শিকার হতে হয় যাত্রীদের৷

পাশাপাশি, ব্যস্ত সময়ে এই দুর্ঘটনা মোকাবিলা করতে ট্রাফিক পুলিশকেও যথেষ্ট তৎপর হতে দেখা যায়৷ স্থানীয়দের বক্তব্য, দুর্ঘটনার জেরে যাতে যাত্রীদের বেশি সময় হেনস্থা হতে না হয় সেই কারণে খুব দ্রুত এই সমস্যা মোকাবিলা করেন তাঁরা৷ বর্তমানে ফের চেনা ছন্দে ফিরে এসেছে হাওড়া কোনা এক্সপ্রেসওয়ে৷ তবে এলাকাবাসীদের অভিযোগ, কোনা এক্সপ্রেসওয়েতে রেষারেষি নতুন কোনও ঘটনা নয়৷ এর জেরে প্রায় প্রতি দিনই কোনও না কোনও দুর্ঘটনা ঘটে থাকে৷ তারপরও সচেতন হয় না চালকরা৷ এই বিষয়ে প্রশাসন যাতে বিশেষ নদরদারি চালায় সেই দাবি জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা৷

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও