পূর্ব মেদিনীপুরঃ জাতীয় সড়কে চারটি গাড়ির ভয়াবহ দুর্ঘটনা। মর্মান্তিক মৃত্যু একজন মহিলার। আহত হয়েছে কমপক্ষে আরও কমপক্ষে চারটি গাড়ির ১২জন। দুর্ঘটনাটি ঘটেছে দিঘা নন্দকুমার ১১৬ বি জাতীয় সড়কে হেঁড়িয়া ঠাকুরনগর পেট্রোল পাম্পের সংলগ্ন এলাকায়।

পুলিশ জানিয়েছে মৃত সানু বিবি (৩৩)। তার বাড়ী উওর চব্বিশ পরগনা এলাকায় । আহতরা হলেন মৃত গৃহবধুর তিন বছরের ছেলে ও স্বামী সহ ১২ জন। ভয়াবহ এই ঘটনার কারণে জাতীয় সড়ক অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে৷ ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসে হেঁড়িয়া তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ।

আহতদের উদ্ধার করে হেঁড়িয়া প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে। যদিও আহতদের মধ্যে কয়েকজনের অবস্থার অবনতি হলে তমলুক জেলা হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। তাদের মধ্যে বেশ কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গিয়েছে।

অন্যদিকে, হেঁড়িয়া হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসক মহিলাকে মৃত বলে ঘোষনা করেন। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, দিঘাগামী একটি মাছ লরির সঙ্গে নন্দকুমারগামী একটি প্রাইভেট কারে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। পরপর দুটি প্রাইভেটকার এসে ধাক্কা মারে। তারপরে একটি গাড়ি পাশে নয়নজ্বলিতে নেমে যায়।

দুর্ঘটনার পর স্থানীয় বাসিন্দারা ছুটে এসে দুর্ঘটনাগ্রস্ত চারটি গাড়ি থেকে আহতদের উদ্ধার কাজে হাত লাগায়৷ দ্রুত ঘটনার স্থলে ছুটে আসে হেঁড়িয়া তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ। আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো ব্যবস্থা করেন। হেঁড়িয়া স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে আসার পথে এক মহিলার মৃত্যু হয়।

কয়েকজনের অবস্থায় অবনতি হলে তমলুক জেলা হাসপাতালে স্থান্তরিত করা হয়েছে। পুলিশ এসে দুর্ঘটনাগ্রস্ত চারটি গাড়ি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। তারপরে যানচলাচলা স্বাভাবিক করেন। আরও জানা গিয়েছে, মৃত গৃহবধু স্বপরিবারে দিঘা বেড়াতে এসেছিলেন। গাড়ি করে বাড়ি ফেরার জন্য রওনা দেয়।

হেঁড়িয়া কাছে গাড়িটি দুর্ঘটনায় কবলে পড়ে। প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন, প্রথমে দিঘাগামী একটি লরি সঙ্গে গাড়ির মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়৷ পরপর দুটি গাড়ি নিয়ন্ত্রন হারিয়ে ধাক্কা মারে।

হেঁড়িয়া তদন্তে কেন্দ্রের এক পুলিশ আধিকারিক বলেন দ্রুত গতিতে থাকার কারনে দুর্ঘটনা বলে প্রাথমিক ভাবে অনুমান করা হচ্ছে। একজনের মৃত্যু হয়েছে। বাকীদের হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। ঘটনাটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে৷

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।