পাটনা: বাড়িতে শৌচালয় নেই৷ কখন অন্ধকার হবে তার অপেক্ষায় বসে থাকত হত৷ অন্ধকার নেমে আসলে খুঁজতে হত ঝোপঝাড়ের নিভৃতি৷ লজ্জায় মাথা হেঁট হয়ে যেত গৃহবধুর৷ আর সহ্য করতে না পেরে শ্বশুরমশাইকে সটান টেনে নিয়ে গেলেন থানায়৷ সেখানে গিয়ে শ্বশুরমশাইকে দিয়ে মুচেলেকা লেখালেন৷ শৌচালয় বানিয়ে দিতেই হবে- এই শর্তেই শ্বশুড়ের মিলল ছাড়৷ ঘটনাটি বিহারের মুজফফরপুর জেলার মিনাপুর ব্লকের৷

বাড়িতে শৌচালয়ের প্রয়োজনীয়তা নিয়ে ক্রমশ সজাগ হচ্ছেন মহিলারা৷ শৌচালয় না থাকায় হবু বরের সঙ্গে বিয়ে ভেঙে দিয়েছেন এমন ঘটনাও প্রকাশ্যে এসেছে৷ শৌচালয় নেই বলে স্বামীর সঙ্গে বিচ্ছেদ চাইতে পিছপা হচ্ছেন না স্ত্রীরা৷ এবার শৌচালয় নির্মাণের দাবিতে শ্বশুড়মশাইকে পুলিশ স্টেশনে টেনে নিয়ে গেল বৌমা৷

মুজফফরপুর মহিলা থানার অফিসার-ইন-চার্জ সংবাদসংস্থা পিটিআইকে জানান, গত ২৫শে সেপ্টেম্বর ওই মহিলা তার শ্বশুড় ও ভাসুরের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করেন৷ অভিযোগ,বাড়িতে শৌচালয় তৈরির ব্যাপারে তাঁর কোনও অনুরোধেই তাঁরা কান দিচ্ছেন না৷ সেই কারণে তাকে বাপেরবাড়িতে থাকতে হচ্ছে৷ তামিলনাড়ুতে কর্মরত স্বামী ফিরে এলে তবেই তিনি শ্বশুড়বাড়ি যান৷ স্বামী কাজে ফিরে গেলে তাকেও বাপেরবাড়ি ফিরে যেতে হয়৷

সমস্যার সমাধানে কোনও পথ না খুঁজে পেয়ে পুলিশের দ্বারস্থ হন ওই মহিলা৷ নির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে ২৬শে সেপ্টেম্বর শ্বশুড় ও ভাসুরকে থানা থেকে ডেকে পাঠানো হয়৷ তাতে ফলও মেলে হাতে নাতে৷ থানায় এসে বন্ডে সই করেন শ্বশুড়৷ জানান, তাড়াতাড়ি শৌচালয় তৈরির কাজ শুরু করবেন তিনি৷ এরপরই অভিযোগ প্রত্যাহার করে নেন ওই মহিলা৷