তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: বিষ্ণুপুর লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী সৌমিত্র খাঁকে কদর্য ভাষায় আক্রমণ করলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়৷ একদা তৃণমূল সাংসদের বিরুদ্ধে তাঁর অভিযোগ, পাঁচ বছরে উনি কোনও কাজ করেননি৷

সোমবার বিষ্ণুপুর লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী শ্যামল সাঁতরার হয়ে নির্বাচনী জনসভা করেন মুখ্যমন্ত্রীর ভাইপো অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়৷ সেখানে তৃণমূল যুব সভাপতি বিজেপি প্রার্থী সৌমিত্র খাঁকে তীব্র ভাষায় আক্রমণ শানান৷ অভিষেক বলেন, ‘‘পাঁচ বছরে উনি কোনও কাজ করেননি৷ বালি আর বউ নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন৷’’ সদ্য দলত্যাগী সৌমিত্রকে ‘নোংরা, উচ্ছিষ্ট’ বলে কটাক্ষ করেন৷ বাঁকুড়ার জয়পুরের গোকুলনগর ফুটবল মাঠের জনসভায় অভিষেক বলেন, ‘‘ বিজেপি এমন একজনকে প্রার্থী করেছে যাঁকে তৃণমূল ডাস্টবিনে ফেলে দিয়েছে। সেই নোংরা, উচ্ছিষ্টকে তারা প্রার্থী করেছে।’’

সৌমিত্র খাঁকে আক্রমণ করতে গিয়ে তাঁর ব্যক্তিগত জীবনকেও টেনে আনেন অভিষেক৷ কটাক্ষ করে তৃণমূল যুবসভাপতি বলেন, ‘‘যারা শ্বশুরবাড়িতে থাকে, তাঁরা বৌ আর শ্বশুরবাড়ি নিয়েই থাক। শ্যামল সাঁতরা আগামী পাঁচ বছরের জন্য দিল্লিতে যাক’’। এদিনের সভায় সিপিএম, বিজেপি, কংগ্রেসের জামানাত বাজেয়াপ্ত করার আবেদন জানিয়ে বলেন, ‘‘শ্যামল সাঁতরাকে ভোট দেওয়া মানেই সেই ভোট আপনারা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দিচ্ছেন’’।

এদিনই অভিষেক বাঁকুড়ার হীড়বাঁধের ভূবনডাঙ্গার মাঠে দলের প্রার্থী সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের সমর্থনে এক নির্বাচনী জনসভা করেন৷ সেখানেও তিনি বিজেপিকে আক্রমণ করেন৷ জানান, বিজেপি অন্য রাজ্যের ভোটগুলিতে যত হেরেছে তত কেরোসিন, রান্নার গ্যাস, পেট্রল, ডিজেলের দাম কমেছে। বিজেপিকে চোরেদের দল বলেও কটাক্ষ করেন৷ বলেন, ‘‘যত চোর ছেঁচড় আর উচ্ছিষ্টদের জায়গা বিজেপি। এই সব লোকেদের নিজেদের দলে জায়গা দিয়ে বাংলাকে অশান্ত করা যাবে না৷’’

পাশাপাশি জঙ্গলমহলে শান্তি ফিরে আসার জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রশংসা করেন৷ বলেন, যে রাজনৈতিক দল ও তার নেতারা এক সময় জঙ্গলমহলে অশান্তি সৃষ্টি করেছিল তাদের কাছ থেকে তৃণমূল কংগ্রেসকে শান্তির কথা শুনতে হবে না। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মাওবাদীদের দমন করে জঙ্গলমহলকে সারা দেশের ‘মডেল’ করে তুলেছেন।