নয়াদিল্লি: লোকসভায় সিটিজেনশিপ অ্যামেন্ডমেন্ট বিল পেশ করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। বিল পেশ করার পরই আশারূনুপভাবেই তীব্র বিরোধিতা করে বিরোধীরা। সোমবার সকাল থেকেই এই ইস্যুতে উত্তাল ছিল লোকসভা। এদিন সন্ধেয় এই ইস্যুতে কেন্দ্রকে আক্রমণ করেন বাংলার তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। একের পর এক প্রশ্ন ছুঁড়ে দেন সরকারের দিকে।

এদিন তিনি সরকারকে আক্রমণ করতে গিয়ে স্বামী বিবেকানন্দের কথা তুলে আনেন অভিষেক। তিনি বলেন, ‘স্বামী বিবেকানন্দ আজ এই বিল দেখলে চমকে যেতেন।’ তাঁর দাবি, ১২৬ বছর আগে বিবেকানন্দ যে কথা বলেছিলেন, আজ একেবারে উল্টো কথা বলছে বিজেপি সরকার। বিবেকানন্দের ঐক্যের ধারণা ভেঙে, মোদী সরকার বিভেদের ধারণায় বিশ্বাস করছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

নাগরিকত্ব বিলে ধর্মের বিভেদ তৈরি হয়েছে, এমন দাবি আগেও জানিয়েছেন বিরোধীরা। সোমবার সকালেও অধীর চৌধুরি বলেন, সংখ্যালঘুদের বিরোধিতা করতেই এই বিল আনা হয়েছে। সেকথা ফের একবার বলেন ডায়মন্ড হারবারের সাংসদ। বলেন, ‘অসুস্থ হলে ডাক্তারকে গিয়ে জিজ্ঞেস করেন হিন্দু না মুসলিম? আ্যাম্বুলেন্স ডাকলে জিজ্ঞেস করেন হিন্দু না মুসলিম?’

এনআরসি আতঙ্কে বাংলায় একাধিক মৃত্যু হয়েছে, সেকথাও উল্লেখ করে অভিষেক বলেন, ‘এই মৃত্যুর দায় কার?’

এদিন লোকসভায় অমিত শাহ বলেন, ‘ধর্মীয় কারণে বিতাড়িত মানুষদের নাগরিকত্ব দেবার জন্য এই বিল। এই বিলের দ্বারা কোনো মুসলিমের অধিকার হরণ করা হবেনা, আইন অনুযায়ী সকলে আবেদন করতে পারবে এবং নাগরিকত্ব লাভ করবে।