ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচনে সব রাজনৈতিক দলের এখন পাখির চোখ ‘দক্ষিণ বাঁকুড়া’। বৃহস্পতিবার বিজেপি নেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায়ের এখানে দলীয় সভা সেরে যাওয়ার পর শুক্রবার নির্বাচনী জনসভা করলেন তৃণমূলের সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন বাঁকুড়ার খাতড়ার কেচন্দা হাইস্কুল মাঠে ওই সভা করেন৷ সেখানে তিনি বলেন, ‘‘যে বুথে প্রচারের প্রয়োজন আছে সেই বুথে পড়ে থাকুন। আমাকে যতবার ডাকবেন আমি ততবারই আসবো। আমি নিজে প্রচার করে দিয়ে যাব।’’

জঙ্গলমহল সহ গোটা দক্ষিণ বাঁকুড়ার মানুষের পাশে থাকার আশ্বাস দিয়ে তৃণমূলের সর্বভারতীয় যুব সভাপতি তথা সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন দাবী করেন, ‘‘যত দফায় ভোট করানোর দরকার করাক। তবু আমরাই জিতব৷’’

এদিনের নির্বাচনী জনসভায় তিনি একদিকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে রাজ্য সরকারের বিভিন্ন প্রকল্পের কথা তুলে ধরার পাশাপাশি কন্যাশ্রী, সবুজসাথী-সহ বাঁকুড়ায় দু’হাজার কোটি টাকার জল প্রকল্পের কথাও তুলে ধরেন। অন্যদিকে সিপিএমকে ‘হার্মাদ’ এবং বিজেপিকে ‘উন্মাদ’ বলে কটাক্ষ করতে ছাড়েননি তৃণমূল যুব সভাপতি।

এর পাশাপাশি কেন্দ্রের একটি রিপোর্ট তুলে ধরে বিজেপি শাসিত পাঁচ রাজ্যে দলিত এবং আদিবাসীদের উপর কী ধরনের অত্যাচার করা হয়েছে, সেই কথাও এদিনের সভায় তুলে ধরেন। এছাড়া এবারের পঞ্চায়েত নির্বাচনে মনোনয়ন পর্বে বিরোধীরা সন্ত্রাসের যে অভিযোগ তুলেছে তার জবাবে এদিন তিনি বলেন, ‘‘বিরোধীরা জানত প্রার্থী দিলে গো হারা হেরে যাবে। তাই অনেক জায়গায় প্রার্থী দিতে পারেনি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যের যে উন্নয়ন করেছে, সারা দেশে তার সিকি ভাগ উন্নয়ন হয়নি৷’’

এদিনের জনসভায় তিনি দলীয় কর্মী এবং একই সঙ্গে প্রার্থীদের প্রতিটি বাড়িতে বাড়িতে যাওয়ার পরামর্শ দেন। নির্বাচনের আগে পর্যন্ত বুথে বুথে পাড়ায় পাড়ায় পড়ে থাকার নির্দেশ দেন। তিনি প্রার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘‘আমাদের কর্মীদের বুথে বুথে পড়ে থাকতে হবে। মানুষের কাছে বিনম্র ভাবে যেতে হবে।’’ ১৭ তারিখ ভোটের রেজাল্ট বেরলেই তৃণমূলের জয় জয়কার বিজেপিকে জেলা ছাড়া করার হুঁশিয়ারিও দেন তিনি। একই সঙ্গে বিজেপিকে সাম্প্রদায়িক দল বলার পাশাপাশি উপস্থিত কর্মীসমর্থকদের সাবধান করে তিনি বলেন, ‘‘বিজেপি জঙ্গলমহলে ফের অশান্তির বাতাবরণ তৈরি করবে।’’

তাই কর্মীদের প্রতি তাঁর পরামর্শ, ‘‘প্রার্থী পড়তে হবে না। জোড়াফুল দেখলেই ব্যালটে ছাপ দেবেন। আমরা বুক দিয়ে নয়নের মণির মতো জঙ্গলমহলকে আগলে রাখবো৷’’ অস্ত্র নিয়ে রামনবমীর তীব্র বিরোধিতা করে এদিন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘‘বিজেপির থেকে আমাকে হিন্দু ধর্ম শিখতে হবে না। বাপের ব্যাটা হলে দশ দিন ধরে উত্তরপ্রদেশে দুর্গাপুজো চালু করে দেখাও। অন্য রাজ্যে ভাইফোঁটা চালু করে দেখাও।’’

এদিনের সভায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ছাড়াও বিদায়ী সভাধিপতি অরুপ চক্রবর্তী ও দলের নির্বাচিত বিধায়করা উপস্থিত ছিলেন।

Advertisements