কলকাতা: এই অস্থির সময় দাঁড়িয়ে তাঁর কাছে প্রেম মানে মানুষকে ভালবাসা। এমনটাই মনে করেন সাহিত্যিক আবুল বাশার। তিনি kolkata24x7-কে বলেন, “ভালবাসা পৃথিবীতে বেড়ে যায় ততই ভাল। চার দিকে যখন হিংসার ছড়াছড়ি তখন প্রতিদিনই ভ্যালেন্টাইন ডে হওয়া উচিৎ। হিংসাকে রুখতে পারে প্রেম। আমার কাছে প্রেম দিবসের গুরুত্ব হল মানুষকে ভালবাসা। এটাই ভ্যালেন্টাইন ডে-র বার্তা।”

এর পরেই ব্যক্তিগত প্রেমের প্রসঙ্গে আসেন বাশার। তাঁর মতে, “আমার মনে হয় কিশোর বয়সের প্রেমের একটা অভিশাপ থাকে। আমার সেই প্রেমকে পায় না। আর সারাজীবন সেই প্রেমকে নিয়ে ভাবে। সেরকম প্রেম আমার জীবনেও ছিল। তাঁকে নিয়ে নানা রকম লেখাও লিখেছি। বুক ভারা ভাল বাসা থাকে। তবে এক বয়সে প্রেমকে আয়ত্ত করার মতো বুদ্ধি থাকে না। যখন একাদশ শ্রেণিতে পড়ি। তখন প্রেম এসেছিল।”

ছোটবেলার প্রেমকে যে কখনও ভোলা যায় না সে কথাও স্বীকার করেন এই সাহিত্যিক। তিনি বলেন “ছোটবেলার প্রেমকে মনে রেখে মানুষ সারা জীবন পথ চলে। প্রথম প্রেম মন থেকে কিছুতেই সেই প্রেম মুছে যায় না। ছোটবেলায় পরিপক্ক বুদ্ধি থাকে না মানুষের। অথচ ভালবাসার একটা আশ্চর্য আকর্ষণ থাকে। বয়স যখন বাড়ে সেটা মনের মধ্যে এক দ্বীপ রচনা করে। সে প্রেমকে এমন এক নক্ষত্রের আলো সেই দ্বীপের ওপর ভাসতে থাকে যেকে জীবনানন্দ ‘সুচেতনা’ বলেছিলেন।”

এখনও কিশোর বয়সের প্রথম প্রেমকে বয়ে চলেছেন তিনি। বাশারের কথায়, “প্রথম প্রেমকে সেরকমই মনে হয় আমার। জীবননান্দ অন্য চেতনার থেকেই বলেছিলেন কথাগুলো। কিন্তু আমার এটাকেও প্রেমচেতনার চিত্রকল্প মনে হয়। ‘সুচেতনা তুমি এক দূরতম দ্বীপ/ বিকেলের নক্ষত্রের কাছে’। ছোটবেলার প্রেম সেরকমই, দিগন্তের মধ্যে জেগে থাকে। মানুষ ভুলতে পারে না। সারা জীবন যতবার মানুষ প্রেম করে ততবার প্রথম প্রেমেরই পুনরাবৃত্তি ঘটতে থাকে। প্রথম প্রেমকে পাওয়ার জন্যই মানুষ যেন জীবনভর প্রেম করে চলে।”

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ