কলকাতা: তৃণমূল আগেই বলেছিল এবার সেই একই রাস্তায় হাঁটল সিপিএমও। ব্যাঙ্ক থেকে এটিএমের মাধ্যমে টাকা গায়েবের জন্য কেন্দ্রকেই দায়ী করল রাজ্যের প্রাক্তন ও বর্তমান শাসক দল।

দুই দলই জানাচ্ছে, ব্যাঙ্কের সঙ্গে আধার সংযুক্তকরণের ফলেই এই ধরণের ঘটনা বাড়ছে। মঙ্গলবার বিধানসভায় নিজের বক্তব্য পেশ করার সময় সুজন চক্রবর্তী বলেন, রাজ্য জুড়ে প্রতিদিন ব্যাংক জালিয়াতি (Bank Fraud Cases) হচ্ছে এবং গ্রাহকের অ্যাকাউন্ট থেকে অর্থ পাচার করা হচ্ছে। তাঁর দাবি ব্যনাকের সঙ্গে আধারের সংযুক্তকরণের ফলেই এই অপরাধ বাড়ছে। কারণ হিসেবে তিনি বলেছেন, এই সমস্ত তথ্য হ্যাকারদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের বিবরণ পেতে সাহায্য করেছে।

তৃণমূল নেতা ফিরহাদ হাকিম বলেন, মমতা ব্যানার্জী আগেই বলেছিলেন জালিয়াতরা এসে নিয়ে যাবেন। কলকাতার মেয়র এদিন বলেন, আধারের সঙ্গে প্য়ান বা অন্যান্য তথ্য সংযুক্তিকরণের পরেই বেড়েছে জালিয়াতির ঘটনা।

উল্লেখ্য, ইতিমধ্যেই কলকাতায় ১৪ লক্ষ টাকা প্রতারণার অভিযোগ সামনে এসেছে। আতঙ্কের পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে জনমানসে। সকলেই চাইছেন তাঁদের টাকা যেন সুরক্ষিত থাকে। কিন্তু হ্যাকারদের নজর এড়িয়ে সেটা কেমন করে সম্ভব তাই ভাবাচ্ছে সকলকে।

আরও পড়ুন – নারদ কাণ্ডে কন্ঠস্বর রেকর্ড করতে চায় CBI, বাধা দিচ্ছেন তৃণমূল বিধায়ক

ইতিমধ্যে তদন্ত শুরু করেছে কলকাতা পুলিশ। নির্দিষ্ট কিছু এটিএম খতিয়ে দেখেন গোয়েন্দারা। দিল্লির বিভিন্ন এটিএম থেকে টাকা তোলার অভিযোগ ওঠায় কলকাতা পুলিশের একটি বিশেষ দল গিয়েছে সেখানে। দিল্লি পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে সেই সব এটিএমগুলি গিয়ে সিসিটিভি ফুটেজও পরীক্ষা করছেন তারা। সেকাহ্নে দেখা গেছে মুখে মাস্ক পড়ে টাকা তুলছেন বেশ কয়েকজন। তাঁদের খোঁজেও চলে তল্লাশি।

গতবছরে এটিএম প্রতারণার সময় সামনে এসেছিল রোমানিয়ার গ্যাং-এর কথা। এবারও তাদের নামই সামনে আসছে। আগের বার পুলিশের হাত থেকে পালিয়ে বেঁচেছিল ওই গ্যাং-এর একজন। মনে করা হচ্ছে সেই নতুন কর দল গড়ে আস্তানা গেড়েছে রাজধানীতে। ফলে আগেকার সূত্র ধরেই তদন্ত শুরু করা হয়েছে।