নয়াদিল্লি: ২০১৬ সালে আধার কার্ড নিয়ে আসার পর থেকে অনেক নেতা বিরোধিতা করেছিল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর। চূড়ান্ত ভাবে বিরোধিতা করেছিলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মাননীয়া মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে তা বেশীদিন স্থায়ী হয় নি। অন্যান্য পরিচিতি পত্রের মত আধার কার্ড ও হয়ে উঠেছে সাধারণ মানুষের কাছে এক পরিচিতি পত্র। আজ বিভিন্ন প্রয়োজনে ব্যবহার করা হয় এই আধার কার্ড। তবে আধার কার্ডের কিছু ভুলভ্রান্তি থাকা বা অন্য কোন কারণে আপডেট করতে গেলে সমস্যার মধ্যে পড়েন সাধারণ মানুষ। ইউনিক আইন্ডিটিফিকেশন অথরিটি অফ ইন্ডিয়া একটি নোটিশ জারি করে জানিয়েছে যে আধার কার্ড হোল্ডারদের কোনও তথ্য পরিবর্তন করতে হলে কোন রকম ডকুমেন্টের প্রয়োজন পড়বে না।

আধার কার্ড ব্যবহারকারীরা তাদের ছবি,সই, ফিঙ্গারপ্রিন্ট, আইআরআইএস স্ক্যান, মোবাইল নম্বর বা ইমেল আইডি পরিবর্তন করতে চাইলে কেবলমাত্র কাছের আধার সেবা কেন্দ্রে গিয়ে আপডেট করিয়ে নিলেই হবে বলে জানানো হয়েছে।

এই বছরের জুলাই মাসে দিল্লি এবং বিজয়ওয়ারাতে প্রথমবার ইউআইডিএআই তাদের প্রথম আধার সেবা কেন্দ্র খোলে। বছরের শেষের মধ্যে দেশ জুড়ে ১১৪ টি কেন্দ্র খোলার পরিকল্পনা তাদের রয়েছে।

পাসপোর্ট সেবা কেন্দ্রের মতই এই সেবা কেন্দ্র বর্তমানে সারা দেশের ৫৩ টি শহরে রয়েছে এই পরিষেবা প্রদান করার জন্য। এই সমস্ত পরিকল্পনার জন্য প্রায় ৩০০-৪০০ টাকা খরচ করা হয়েছে।

আধার কার্ড ব্যবহারকারীরা কার্ডে কোনরূপ পরিবর্তন করতে চাইলে এই সকল কেন্দ্রে অনলাইনে অ্যাপোয়েন্টমেন্ট করে সেবা কেন্দ্রে গিয়ে এই সকল পরিষেবা তারা নিতে পারবেন।

ইউআইডিআই ব্যাঙ্ক, পোস্ট অফিস এবং সরকারই অফিসে এই সকল পরিষেবা প্রদান করবে। তাছাড়াও, দিল্লি, চেন্নাই, ভোপাল, আগ্রা, হিসার, চণ্ডীগড় এবং বিজয়ওয়ারা তে এই সেবা কেন্দ্র কাজ শুরু করেছে। এছাড়াও এই মাসে শুরুতে ভোপাল, চেন্নাই, পাটনা, গুয়াহাটিতে এই সেবা কেন্দ্র খুলে পরিষেবা দেওয়া শুরু করবে। তাছাড়াও দেশের ৫৩ টি শহরে ১১৪ টি শাখা খোলারও পরিকল্পনা রয়েছে।

সেবা কেন্দ্র থেকে পরিষেবা পাওয়ার জন্য কার্ড হোল্ডারদের একটি অনলাইনে অ্যাপোয়েন্টমেন্ট করতে হবে। যার ফলে তারা সেবা কেন্দ্র থেকে যে পরিষেবা গুলো পাবে তা হল-

নতুন আধার এনরোলমেন্ট, নাম আপডেট, ঠিকানা আপডেট, মোবাইল নম্বর আপডেট, ইমেল আইডি আপডেট, ডেট অফ বার্থ আপডেট, লিঙ্গ আপডেট, বায়মেট্রিক আপডেট( ফিঙ্গারপ্রিন্ট+ ফটো+আইআরআইএস)