নয়াদিল্লি: বুধবার আধার ইস্যুতে সুপ্রিম কোর্টের তীব্র সমালোচনার মুখে পড়ল কেন্দ্র৷ এদিন শীর্ষ আদালত বলে অতিরিক্ত ক্ষমতা পেয়ে গিয়েছে ইউআইডিএআই৷

কেন্দ্রের হয়ে সুপ্রিম কোর্টে সওয়াল করেন অ্যাটর্নি জেনারেল কে কে ভেনুগোপাল৷ বুধবার আদালতকে কেন্দ্র জানায় সব দিক খতিয়ে দেখে আধার প্রকল্পে বিশেষজ্ঞরা সবুজ সংকেত দিয়েছেন, এটি সরকারের নীতি৷ এর বৈধতা নিয়ে আদালত মাথা ঘামাতে পারে না৷

তবে এদিন কেন্দ্রকে কার্যত তুলোধনা করে আদালত৷ শীর্ষ আদালতের পর্যবেক্ষণ, আধার কর্তৃপক্ষ যেভাবে ব্যক্তিগত তথ্য চাইছে তাতে একদিন তারা নাগরিকদের রক্ত, মূত্র ও ডিএনএ নমুনাও চেয়ে বসতে পারে। এর ফলে সংসদের অত্যধিক শক্তিপ্রদর্শন করা হবে কিনা তা জানতে চায় শীর্ষ আদালত। অ্যাটর্নি জেনারেল বেণুগোপাল জানান, যদি তা হয়, তবে অবশ্যই সেগুলি আদালতের বিচারাধীন হবে।

সুপ্রিম কোর্টের প্রশ্ন, একশ কোটির বেশি নাগরিকের পক্ষে এত কিছু তথ্য দিয়ে আধার কার্ড করা সম্ভব কিনা। শীর্ষ আদালতের বক্তব্য, আধার হয়তো দেশের ভালোর জন্যই পদক্ষেপ৷ কিন্তু এর বিভিন্ন দিক বিচার করে দেখার দায়িত্ব কেন্দ্রের৷

প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রের নেতৃত্বে ৫ বিচারপতির একটি বেঞ্চে আধারের বৈধতা নিয়ে শুনানি চলছে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।