মুম্বই : মধ্যরাতে হুমকি ফোন করার অভিযোগ উঠল দাউদের বিরুদ্ধে৷ শুক্রবার রাতে করাচি থেকে ওই ফোন আসে বলে অভিযোগ করেছেন আম-আদমি পার্টির প্রাক্তন নেত্রী অঞ্জলি দামানিয়া৷ তিনি সমাজকর্মী হিসাবেও পরিচিত৷ বিজেপি নেতা তথা মহারাষ্ট্রের প্রাক্তন মন্ত্রী একনাথ খাড়সের বিরুদ্ধে তিনি একটি মামলা করেছেন৷ সেই মামলা তুলে নিতেই ওই হুমকি ফোন করা হয় বলে অভিযোগ করেছেন তিনি৷

শনিবার সকালে তিনি প্রথম টুইটারে এই নিয়ে অভিযোগ করেন৷ সেখানে টুইট করে তিনি লেখেন, গতকাল রাত ১২টা ৩৩ মিনিটে তাঁর কাছে একটি ফোন আসে৷ ওই ফোন থেকে তাঁকে খাড়সের বিরুদ্ধে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য হুমকি দেওয়া হয়৷ অঞ্জলির দাবি, ফোনে তাঁকে বলা হয়, ‘‘তু নে জিনা হারাম কর রাখা হ্যায় সবকা, তেরি ফ্যামিলি হ্যায় না৷’’ (তুই সকলের জীবন অতিষ্ট করে তুলেছিল, তোর পরিবার আছে তো)৷ অঞ্জলির দাবি, তিনি মোবাইলের ট্রুকলার অ্যাপে দেখেন ওই নম্বরটি ‘দাউদ ২’ হিসাবে দেখা গিয়েছে৷ করাচির একটি ল্যান্ডলাইন নম্বর থেকে ওই ফোনটি এসেছিল৷ তার থেকেই তাঁর সন্দেহ দাউদ ইব্রাহিমের তরফেই এই হুমকি ফোন দেওয়া হয়৷

বিষয়টি তিনি মহারাষ্ট্রের পুলিশ ও প্রশাসনকে জানান৷ এ নিয়ে তিনি টুইটও করেন৷ প্রথমে লেখেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রীকে জানিয়েছেন৷ মুম্বইয়ের গোয়েন্দা প্রধান তদন্ত করছেন৷ কয়েকঘণ্টা পর আবার এ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংকে মেনশন করে টুইট করেন৷ যেখানে তিনি প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার জন্য সময়ও চেয়েছেন৷

তবে এ নিয়ে সন্দেহ দানা বেঁধেছে৷ কারণ, নম্বরটি আদৌ দাউদের কি না৷ কিম্বা ফোনটি পাকিস্তান থেকেই এসেছিল কি না, তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে৷ ফলে আপাতত গোটা বিষয়টি খতিয়ে দেখছে পুলিশ৷

প্রসঙ্গত, একনাথ খাড়সে মহারাষ্ট্রের রাজস্বমন্ত্রী ছিলেন৷ কিন্তু তাঁর বিরুদ্ধে জমি সংক্রান্ত দুর্নীতির অভিযোগ ওঠায় তিনি পদত্যাগ করেন৷ অন্যদিকে অঞ্জলি দামানিয়া সেচ সংক্রান্ত বিষয়ে এক ঠিকাদারকে সুবিধা পাইয়ে দেওয়ার অভিযোগ তুলেছেন৷ তা নিয়ে মামলা করেছেন৷