সৌপ্তিক বন্দ্যোপাধ্যায় , চন্দননগর : সকালে তিনি মুরগি কাটেন। রাতে তিনিই আবার জগদ্ধাত্রী আরাধনা করেন। চন্দননগরের অগুন্তি লক্ষ লক্ষ টাকার জগদ্ধাত্রী পূজার মাঝে সবার থেকে আলাদা যুবকের জগদ্ধাত্রী পুজো। যা এই বছরে পা দিল ২৫ বছরে ।

‘মা তুমি কার?’ এমন নামের থিমও হয়েছে জগদ্ধাত্রী পুজোয়। কিন্তু কৌশিক মাঝির মা যেন সবার চেয়ে আলাদা। তাঁর সজন বসনে চাকচিক্য নেই। নেই তাঁর চালচিত্র , নেই মাথার উপর কোনও এক বিশাল সুসজ্জিত মন্ডপ।

আরও পড়ুন: দীপিকা-রণভীরের বিয়ের ছবি এখন মিমের ময়দান

আছে কেবল কৌশিকের ভক্তি, শ্রদ্ধা এবং মায়ের পুজোর প্রতি একনিষ্ঠতা। ব্যাপক হারে মূল্যবৃদ্ধির বাজারে সকালে কশাইখানায় মাংস কেটে সন্ধায় সেই হাতেই ওঠে মাতৃ মূর্তি গড়ে তোলার মাটি। এভাবেই ২৫ বছরে পা দিয়েছে চন্দননগরের নারুয়ার কৌশিকের জগদ্ধাত্রী পুজো।

কৌশিকের প্রতিবেশী তাপস মোদক বলেন, “চন্দননগরের নারুয়ার এই পুজো পায়ে পায়ে কখন যে পঁচিশে পৌঁছে গিয়েছে পlড়ার কারও খেয়াল নেই। দরিদ্র পরিবারের ছেলে কৌশিক। পেশায় মুরগি দোকানের কর্মচারী। ওই হাত দিয়েই নিষ্ঠা ভরে মায়ের মূর্তি তিলে তিলে গড়ে তোলে।”

আরও পড়ুন: বুমরাহ ভারতীয় পেস অ্যাটাকের ‘এক্স-ফ্যাক্টর’: ফ্লেমিং

একইসঙ্গে তিনি বলেন, “সারাদিন কি হাড়ভাঙা খাটুনি খাটে ছেলেটা সেটা আমি অফিস যাওয়ার সময় দেখতে পাই। আবার সেই ছেলেকেই বাড়ি ফেরার সময় দেখি ঠাকুর গড়তে।”

কৌশিকের মায়ের আদি রূপ। পুজোর আগে গভীর রাত পর্যন্ত ওদের বাড়িতে ঠুকঠাক আওয়াজ। ছোট্ট উঠোন আর চটের ব্যাগের মণ্ডপে ধীরে ধীরে মৃন্ময়ী চিন্ময়ী হয়ে উঠছেন যে। সকালে যে হাত প্রাণ নেয়। সূর্য পশ্চিমে গেলে সেই হাতই ব্যাস্ত ‘প্রাণ’ প্রতিষ্ঠায়। এমনই জগজ্জননীর ‘খেলা’।

আরও পড়ুন: নেপালে পাচারের আগে উদ্ধার বিলুপ্ত প্রায় প্যাঙ্গোলিন, গ্রেফতার ৭

এবারের বাজেট কত? বলতে পারেনি কৌশিক। কি করেই বা বলবে। চেয়ে চিন্তে যা হয় তার সঙ্গে নিজের জমানো টাকা দিয়ে মায়ের পুজোটা করা চাইই চাই তার। কৌশিকের কথায়, “ওই হবে হয়তো। পাঁচ সাত হাজার টাকা।”

চন্দননগরের পুজো। কিন্তু পুজো হবে নবমী আর দশমীতে। কৌশিক বলল, “কিছু করার নেই। কাজটাও সামলাতে হবে। না হলে চলবে কি করে। এই দেখুন না নবমী দশমী কাজে বেরবো না টাকাও আসবে না। কিন্তু মায়ের পুজো না হলে যে আমার মন বসবে না। তাই এই দুটো দিন আমার মায়ের জন্য তোলা থাকে।”

আরও পড়ুন: নন্দকুমারে শুরু হল একতাই সম্প্রীতি উৎসব

পাড়ার অনেকেই কৌশিককে সাহায্যের কথা বলেছে। লাজুক ছেলে এই বিষয়টায় আবার সবাইকে বলতে পারে না। মা হতে পারে সবার, তবু যে ওর একার।

আরও পড়ুন: ৯/১১’র পর যুদ্ধের জন্য মার্কিন খরচ ৬ ট্রিলিয়ন ডলার

প্রশ্ন অনেক: দ্বিতীয় পর্ব