স্টাফ রিপোর্টার, হাবড়া: মাধ্যমিকের পর এবার উচ্চমাধ্যমিক। অসুস্থ পরীক্ষার্থীকে পরীক্ষাকেন্দ্র থেকে হাবড়া স্টেট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে এসে পরীক্ষা দেওয়ানোর ব্যবস্থা করল উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের আধিকারিকরা। অসুস্থ ওই ছাত্রীর নাম নিবেদিতা মিস্ত্রি। চলতি বছরে ওই তরুণী হাবড়ার বাণীপুরের বাণী নিকেতন স্কুল থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা দিচ্ছেন।

জানা গিয়েছে, সোমবার নিবেদিতার রাষ্ট্রবিজ্ঞানের পরীক্ষা ছিল। সেই মতো, ওই দিন নির্ধারিত সমযের আগেই পরীক্ষা দিতে নিজের কেন্দ্রে পৌঁছে যান ওই ছাত্রী। পরীক্ষা শুরুর কিছুক্ষণ পর থেকেই অসুস্থ বোধ করতে থাকেন ওই তরুণী। এরপর গুরুত্বর অসুস্থ হয়ে পড়ে পরীক্ষাকেন্দ্রেই মাথা ঘুরে পড়ে যান তিনি।

বিষয়টি উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষকদের নজরে এলে, তড়িঘড়ি তাঁরাই অসুস্থ ওই ছাত্রীকে হাবড়া স্টেট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তির ব্যবস্থা করেন। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসার পর কিছুটা সুস্থ বোধ করেন নিবেদিতা। তারপরই হাসপাতালের বেডে বসে তাঁর পরীক্ষা দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়।

জানা গিয়েছে, অসুস্থ ওই ছাত্রী হাবড়া শিশুবিদ্যা মন্দির স্কুলে পড়াশোনা করে। এবছরের উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার্থী সে। বর্তমানে ওই ছাত্রী সুস্থ আছে বলেই জানা গেছে। এছাড়াও বাকি সময়টুকুতে সে নির্বিঘ্নেই পরীক্ষা দিয়েছে। এক্ষেত্রে নির্দিষ্ট নিয়ম মেনেই ওই ছাত্রীর পরীক্ষা দেওয়ার ব্যবস্থা করে হাবড়া স্টেট জেনারেল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।