স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বিধানসভা ভোটের আগে রাজ্যে বড়সড় লগ্নি টানতে সমুদ্র উপকূলে ‘শিল্প-নকশা’ তৈরি করল রাজ্য সরকার৷ জানা গিয়েছে, সেই নকশায় দিঘা,মন্দারমনি, শঙ্করপুর, তাজপুর সমুদ্রতটকে জুড়ে মুম্বইয়ের ধাঁচে সমুদ্র সেতু তৈরির পরিকল্পনা করা হয়েছে৷ এক্ষেত্রে পরিকাঠামোয় বিরাট সুবিধা পাবেন বিনিয়োগকারীরা।

রাজ্যের একমাত্র সৈকত শহর দিঘায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত ধরেই এবার অনুষ্ঠিত হতে চলেছে বিশ্ব বাণিজ্য সম্মেলন। জানা গিয়েছে চলতি মাস অর্থাৎ ডিসেম্বরে ১১,১২, তারিখে দিঘার কনভেনশন সেন্টারে আয়োজিত হতে চলেছে এই সম্মেলন। এই অনুষ্ঠানে ৩৫ টি দেশের প্রতিনিধিরা অংশ নেবেন। আমন্ত্রিত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন, পোল্যান্ড, ফ্রান্স, চেকোশ্লোভাকিয়া, অস্ট্রেলিয়া, চিন, বাংলাদেশের মতো দেশের প্রতিনিধি ও শিল্পপতিরা।

দিঘা জুড়ে এখন সাজোসাজো রব। সৈকতধার থেকে রাস্তাঘাট পিকনিক স্পট, অমরাবতী পাক’, টয়ট্রেন, রেলওয়ে স্টেশন,মেরিন ড্রাইভ সব জায়গা গুলিকে নতুনভাবে মেরামত করে রঙিন করে তোলার কাজ চলছে। অনুষ্ঠানের কয়েকদিনের আগে থেকেই দিঘা এলাকা জুড়ে জোরালো নিরাপত্তা ব্যবস্থা হয়েছে। এছাড়াও সর্বত্র আলো, নজর বন্দি ক্যামেরা ওয়াচ টাওয়ার থেকে নজরদারির ব্যবস্থা করা হয়েছে।

অর্থ ও শিল্পমন্ত্রী অমিত মিত্র জানিয়েছেন, ওই সম্মেলন থেকে একাধিক ঘোষণা হবে। রাজ্যের উপকূলে তৈরি হবে পর্যটন ও শিল্পের নতুন সম্ভাবনা। উল্লেখ্য, সৈকত শহরের পর্যটনকে কাজে লাগিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চেয়েছিলেন পুঁজি টানতে৷ সেই লক্ষ্যেই পূর্ব মেদিনীপুরের দিঘায় ৭০ কোটি ২৬ লক্ষ টাকা খরচে গড়ে উঠেছে আন্তর্জাতিক মানের কনভেনশন সেন্টার৷

অর্থমন্ত্রক সূত্রে খবর, শুকনো মাছ, ফল-ফুল রফতানি ও খাদ্য প্রক্রিয়াকরণে জোর দেওয়া হবে।রাজ্যের শিল্প দফতর সূত্রে খবর, বিভিন্ন দেশ থেকে ইতিমধ্যেই এসেছে বিনিয়োগ প্রস্তাব।

যেমন, ১. বীরভূমের দেওচা-পাচামির কয়লাখনিতে বিনিয়োগে আগ্রহী পোল্যান্ড ও চেকোস্লোভাকিয়া।

২. হস্তশিল্পে লগ্নিতে আগ্ৰহ প্রকাশ করেছে ফ্রান্স।

৩. বিদ্যুতক্ষেত্রে বিনিয়োগে সম্মত অ্যারামকো।