নয়াদিল্লি: লোকসভার পর রাজ্যসভাতেও পাশ হয়ে গেল নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল। রাষ্ট্রপতির স্বাক্ষরের পরেই এই বিল আইনে পরিণত হয়ে যাবে। এরই মধ্যে সামনে এল একটি খবর, যা দেখে অবাক অনেকেই।

পাকিস্তান থেকে এদেশে আসা এক হিন্দু শরণার্থী মহিলা নিজের মেয়ের নাম রাখলেন ‘নাগরিকতা’ । মাত্র ১ দিন আগেই জন্ম নিয়েছে সে। সদ্যোজাতের নাম যখন নাগরিকতা রাখা হয়, তখনও রাজ্যসভায় পাশ হয়নি এই বিল। চলছিল বিতর্ক। তারই মাঝে নিজের মেয়ের নাম ‘নাগরিকতা’ রাখেন ওই মহিলা।

তিনি জানান, “আমার আন্তরিক ইচ্ছা। নাগরিকত্ব বিল সংসদে পাশ হয়ে যাক।” মহিলার ইচ্ছাই অবশেষে ফুল হয়ে ফুটল। সংসদের উভয়কক্ষেই পাশ নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল। এরপর রাষ্ট্রপতির অনুমোদন পেলেই এই বিল আইনে পরিণত হবে।

বুধবার রাত ৮টা ৪৫ মিনিট নাগাদ ভোটাভুটিতে বিল পাশ হয়ে যায়। পক্ষে ভোট পড়েছে ১২৫টি ও বিপক্ষে ভোট পড়েছে ১০৫টি। স্বাভাবিকভাবেই ৩৭০-এর পর আরও একটি সাফল্য অমিত শাহের।

এই বিল অনুযায়ী, বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের হিন্দু, বৌদ্ধ, ক্রিশ্চান, জৈন সহ সংখ্যালঘুরা প্রয়োজনে ভারতে নাগরিকত্বের দাবি জানাতে পারবেন। গত সোমবারই লোকসভায় পাশ হয়েছে এই বিল।

লোকসভাতেই বিরোধীদের জবাব দিয়ে অমিত শাহ জানিয়ে ছিলেন, ভারতীয় মুসলিমদের উপর কোনও প্রভাব পড়বে না। ভারতে বসবাসকারী মুসলিমরা সম্মানের সঙ্গেই বাঁচতে পারবেন। বিভেদ তৈরি করার জন্য এই বিল আনা হয়নি বলে উল্লেখ করেন তিনি। রাজ্যসভা থেকেও বিরোধীদের এদিন একই কথা বলেন তিনি।

এদিন রাজ্যসভায় অমিত শাহ জানিয়েছেন, বাংলাদেশ, পাকিস্তান, আফগানিস্তান- তিনটিই মুসলিম দেশ। ফলে, সেখানে মুসলিমদের সঙ্গে অবিচার হওয়ার সম্ভাবনা কম। ফলে, এই বিলে তাঁদের কথা বলা হয়নি। বদলে ওইসব দেশে যাঁরা সংখ্যালঘু, সেই হিন্দু, ক্রিশ্চান, বৌদ্ধ, শিখ, জৈনদের নাম লেখা হয়েছে। তবে কোনও মুসলিমের সঙ্গে অবিচার হলে, তাঁদেরও নাগরিকত্ব দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প