স্টাফ রিপোর্টার, কোচবিহার: মাংস কেনাকে কেন্দ্র করে বচসার জেরে মাংস বিক্রেতা কে ছুড়ি মেরে পালল মদ্যপ যুবক। রবিবার ঘটনাটি ঘটেছে কোচবিহার ২ নম্বর ব্লকের বানেশ্বর বাজারে।

রোজকার মতই এদিনও মাংস বিক্রি করছিলেন কার্তিক দে। সেই সময় বানেশ্বর কলোনীর বাসিন্দা বুদ্ধু দাস মাংস চায় বাকিতে৷ কার্তিক বাকিতে মাংস দিতে অস্বীকার করলে হঠাৎ মাংস কাটার ছুড়ি দিয়েই কার্তিককে আঘাত করে বুদ্ধু৷ এর পর সে পালিয়ে যায়।

গুরুতর আহত অবস্থায় কার্তিক দে কে কোচবিহার এমজেএন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে । তাঁর বুকের নিচে ছুড়ির আঘাত লেগেছে।

পুন্ডিবাড়ি থানার পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে অভিযুক্ত যুবক পলাতক তার খোঁজ চলছে। আহত কার্তিক দের ছেলে দুলাল দে বলেন “বাবার কাছে বাকিতে মাংস কিনতে চেয়েছিল বুদ্ধু দাস৷ বাবা দিতে অস্বীকার করার মাংস কাটার একটি ছুড়ি দিয়ে বাবাকে মেরেই পালিয়ে যায় সে”।

এই ঘটনার পর বাজারের অন্য ব্যাবসায়ীদের মধ্যে অতঙ্ক ছড়ায়৷ দোষি যুবকের দ্রুত গ্রেফতারের দাবি করেছেন অন্য ব্যবসায়ীরা৷ কোচবিহার ২ নম্বর ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি পরিমল বর্মন বলেন “এক মদ্যপ যুবক ঐ ব্যাবসায়ীকে ছুড়ি মেরেছে৷ আমরা ঐ যুবকের দ্রুত গ্রেফতারের দাবি করছি৷” অপরাধীকে গ্রেফতার করা না হলে এলাকায় বন্ধের ডাক দেবেন বলে ঠিক করেছে ব্যবসায়ী সমিতি৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।