পূজা মণ্ডল, কলকাতা : ঘড়ি চলে টিক টিক৷ আলো জ্বলে ঝিক মিক৷ কিন্তু এই আলোর আড়ালেই রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর সাধের মেক ইন ইন্ডিয়া স্বপ্নকে ধাক্কা দেওয়ার কড়া বাস্তব৷

গুজরাতে দেশের উচ্চতম মূর্তি তৈরিতে ব্যবহার হয় চিনা সামগ্রী৷ অভিযোগ, বিজেপির আমলে অতিরিক্ত দেশভক্তি ছড়ালেও, ভারতীয় বাজারে চিনা পণ্যের রমরমা নিয়ে ক্ষোভ ঝরেনা তেমন৷ ভোট বাজারেও মেড ইন চায়না শোভিত হাতঘড়িতেই ভরসা পদ্ম দলের ৷

উত্তর কলকাতা মানেই অবাঙালি সম্প্রদায়ের দীর্ঘদিনের বসবাস৷ ফলে এই এলাকায় বিজেপির একটা বড় ভোট ব্যাংক রয়েছে৷ প্রচারেও তাদের রমরমা চোখে পড়ে৷ তবে সব থেকে চোখ পড়ছে চিনা হাতঘড়িতে বিজেপি লেখা৷ এখানেই প্রবল ধাক্কা খাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর মেক ইন ইন্ডিয়ার স্বপ্ন৷ কারণ তাঁরই দলের প্রতীক শোভিত হাতঘড়ি আসছে চিন থেকে৷

দেদার বিক্রি হচ্ছে বিজেপির লোগো চিহ্নিত চাইনিজ হাতঘড়ি। কমলা রঙের বেল্ট এবং বেল্টের মাঝে ডায়ালের ওপর পদ্ম ফুল আঁকা কভার। ভোটের বাজারে কলকাতার বড় বড় বাজার গুলোতে বিকচ্ছে এই ভোট প্রচারের উপকরণ। দামও বেশী নয়, মাত্র ৫০ থেকে ১০০ টাকার মধ্যেই মিলছে হাতঘড়ি। বাজারে আসা মাত্রই সমর্থক থেকে আমজনতা, হিড়িকের ভিড়ে ফাঁকা করে দিচ্ছেন পদ্ম ঘড়ির সম্ভার।

নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী থেকে শুরু করে জীবন ধারণের বহু মূল্যবান জিনিসপত্র ব্যবহারে ১৩৩ কোটির ভরসা চিন। ভোট প্রচারেই বা তার ব্যতিক্রম হবে কেন! ২০১৯ এর সাধারণ নির্বাচনে ভারতীয় জনতা পার্টির ভরসা সেই চিন-ই। ভোটের মরশুমে কলকাতার বুকে পদ্মঘড়ি চলছে টিক টিক করে৷ সময়ের হিসেব রাখতে ভারতের অন্যতম ‘জাতীয়তাবাদী’ ভরসা সেই চিন।