গোয়ালিয়র: ফের নাবালিকা ধর্ষণের ঘটনা ঘটল মধ্যপ্রদেশে৷ এবার সৎ বাবার হাতে ধর্ষিতা হতে হল মেয়েকে৷ বৃহস্পতিবার মধ্যপ্রদেশের গোয়ালিয়রে ঘটনাটি ঘটেছে৷ নয় বছরের শিশু কন্যার ধর্ষণের ঘটনায় ইতিমধ্যেই চাঞ্চল্য পড়েছে এলাকায়৷

ঘটনায় ওই নাবালিকার মা বাহোদাপুর থানায় অভিযুক্তের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করেছে৷ গোটা ঘটনার তদন্তে নেমেছে পুলিশ৷ তবে অভিযুক্ত পলাতক বলে খবর৷

উন্নাও ও কাঠুয়া গণ ধর্ষণের ঘটনায় যখন উত্তাল গোটা দেশ, তখন মধ্যপ্রদেশের এই ঘটনা ফের ধর্ষণের তালিকায় নিজের নাম জুড়ল৷

এই মধ্যপ্রদেশেই ফেব্রুয়ারি মাসে নৃশংস ধর্ষণের চেষ্টা করে ব্যর্থ হওয়ায় নাবালিকার গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় এক ব্যক্তি। আক্রান্ত হয় এক ১৩ বছরের দলিত নাবালিকা। নৃশংস ঘটনাটি ঘটে মধ্যপ্রদেশের রাজগড় জেলার সুস্তানি গ্রামে।

আক্রান্ত মেয়েটি জানায়, ঘটনার সময় সে একা বাড়িতে ছিল। এক ব্যক্তি তাদের বাড়িতে ঢুকে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে৷ ধর্ষণের চেষ্টায় বাধা দিলে সেই ব্যক্তি তার গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন জ্বালিয়ে দেয়।

ঘটনার পরে প্রথমে তাকে রাজগড় জেলা হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিত্‍সার পর ভোপালে স্হানান্তরিত করা হয়। ১৩ বছরের মেয়েটির শরীরের ৫০ শতাংশ পুড়ে গিয়েছে বলে জানান চিকিত্‍সকরা।

তিন সদস্যের একটি দল অভিযুক্তের খোঁজে তল্লাশি শুরু করে বলে জানান এসডিপিও। এই ঘটনায় একটি মামলাও দায়ের করা হয়।

এদিকে, মধ্যপ্রদেশে ১২ বছর বা তার কম বয়সীদের ধর্ষণের শাস্তি হতে চলেছে মৃত্যুদণ্ড। এ ব্যাপারে একটি প্রস্তাব গত বছর মধ্যপ্রদেশ মন্ত্রিসভায় অনুমোদিত হয়। একই সঙ্গে অনুমোদিত হয় গণধর্ষণের শাস্তি সংক্রান্ত প্রস্তাবটিও। অপরাধীদের শাস্তি ও জরিমানার পরিমাণ বাড়ানোর লক্ষ্যে ভারতীয় দণ্ডবিধির ধরা সংশোধনের প্রস্তাবও এ দিন সর্বসম্মতিতে পাশ হয় মধ্যপ্রদেশ মন্ত্রিসভায়৷