টোকিও: আচমকা প্রবল দুলে উঠল স্টিমারটা৷ যাত্রীদের মনে তখন আতঙ্ক৷ বিশাল নীল সাগরের বুকে তাহলে কি সলিল সমাধি ? ভয়ে চোখ বন্ধ করে নিয়েছেন অনেকই৷ নাবিক ও ক্যাপ্টেন দাঁতে দাঁত চিপে স্টিমার ভাসিয়ে রাখার চেষ্টা চালাচ্ছিলেন৷ ভয়ঙ্কর মুহূর্ত৷ সাগর জলে তখন মৃত্যু এসে দোলা দিচ্ছে যাত্রীদের মনে৷

কিছু পরের ঘটনা৷ স্টিমার কোনওরকমে চালু রেখে গন্তব্যের দিকে চললেন নাবিকরা৷ বিবিসি জানাচ্ছে, জাপান সাগরের এই দুর্ঘটনায় অনেকের মৃত্যু হতে পারত৷ অল্পের জন্য বেঁচে গিয়েছেন তারা৷ একটি বিরাট তিমি সেই স্টিমারকে ধাক্কা মেরেছিল৷ নীগাটা বন্দর থেকে স্যাদো আইল্যান্ডে যাওয়ার পথেই এই দুর্ঘটনা৷ অন্তত ৮০ জন যাত্রী জখম হয়েছেন৷

তিমি ধাক্কা মারার পর এক ঘণ্টা দেরি করে নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছে সবাই হাঁফ ছাড়েন৷ স্যাদো স্টিম শিপ কোম্পানির এই স্টিমার চালায়৷ তারা জানিয়েছে, জখমদের হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে৷ জাপানের উপকূলরক্ষী বাহিনী জানিয়েছে, অন্তত ১৩ জন গুরুতর জখম৷ ২১২ জন যাত্রী এবং চারজন ক্রু ছিলেন সেই স্টিমারে।

চালক জানিয়েছেন, তিমির সাথে সংঘর্ষে জাহাজটির হাইড্রোফয়েল উইং এর একটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এর ফলে ১৫ সেন্টিমিটারের ছয় ইঞ্চি একটি ফাটল তৈরি হয়। এই স্টিমার জেট ইঞ্জিনের সাহায্যে ঘণ্টায় ৮০ কিলোমিটার গতিতে চলতে পারে। প্রাণী বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, জাপান সাগরের এই অঞ্চলে মিঙ্কি এবং হাম্পব্যাক জাতের তিমি ঘনঘন যাতায়াত করে থাকে। তাদেরই কারোর সঙ্গে ধাক্কা লাগার সম্ভাবনা বেশি৷