স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বিতর্কিত ‘অ্যাক্সিডেন্টাল প্রাইম মিনিস্টার’-এর জন্য বইটির লেখক তথা তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং-এর মিডিয়া উপদেষ্টা সাংবাদিক সঞ্জয় বারুকে এক হাত নিলেন এ রাজ্যের প্রাক্তন রাজ্যপাল তথা প্রাক্তন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা এম কে নারায়াণন৷ তিনি ওই বইটির ৮০ শতাংশই মিথ্যা বলে অ্যাখ্যা দিয়েছেন৷

সম্প্রতি এই ‘অ্যাক্সিডেন্টাল প্রাইম মিনিস্টার’ বইটিকে ভিত্তি করে নির্মিত ছবি ঘিরে দেশজুড়ে বিতর্ক দানা বাঁধে৷ গত শুক্রবার ১১ জানুয়ারি ছবিটি মুক্তি পেলেও নানা স্থানে প্রদর্শন বন্ধ করা নিয়ে বিশৃঙ্খলা দেখা গিয়েছে৷ এদিকে নারায়ণন জানান , ওই বইটিতে যা দাবি করা হয়েছে তার ৮০ শতাংশই মিথ্যা৷ তাঁর মতে, বইটির লেখক আদপে কোনও বড় খেলোয়াড় নন৷ তাঁর অভিযোগ, সঞ্জয় বারু ওই বইটি ২০১৪ সালের লোকসভা ভোটের সময় লিখেছিলেন পয়সা রোজগারের উদ্দেশ্যে৷

পাশাপাশি প্রাক্তন এই আইপিএস অফিসারের অভিযোগ, এই বারু ২০০৮ সালে সংবাদ মাধ্যমকে সামলাতে না পেরে পালালেন কারণ তখন ওই ব্যক্তি মনে করেছিলেন ইউপিএ সরকার ক্ষমতায় ফিরবে না৷ ওই বইতে যা আছে তা তাঁর ব্যক্তিগত অভিমতমাত্র ৷ সেই সময় মনমোহন সিং এর আমলের অন্যতম প্রধান সাফল্য ইন্দো মার্কিন পরমাণু চুক্তি করার ক্ষেত্রে অন্যতম আধিকারিক হলেন এই নারায়ণন৷

বিষয়বস্তুই রাজনৈতিক হওয়ায় ‘দ্য অ্যাক্সিডেন্টাল প্রাইম মিনিস্টার’ ছবিটিতে রাজনীতির রঙ লাগতে বেশি দেরি হয়নি৷ ফলে ছবির ট্রেলার মুক্তির পরই থেকেই বিজেপি ও কংগ্রেসের মধ্যে রাজনৈতিক কাজিয়া শুরু হয়৷ সিনেমাটি তৈরির পিছনে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য কাজ করছে বলে অভিযোগ কংগ্রেসের৷

ছবি সৌজন্যে ট্যুইটার

অন্যদিক তখনই বিজেপির তাদের ট্যুইটার হ্যান্ডেলের ছবির ট্রেলারটি শেয়ারও করে৷ গান্ধী পরিবারকে খোঁচা মেরে বিজেপির ট্যুইটে লিখেছিল, দশ বছর ধরে একটি পরিবার দেশ শাসন করে গিয়েছে৷ প্রধানমন্ত্রীর যোগ্য উত্তরসূরি তৈরি না হওয়া পর্যন্ত মনমোহন সিং কী শুধু প্রতিনিধির ভূমিকা পালন করে গিয়েছেন? ছবিতে মনমোহন সিংয়ের চরিত্রে অভিনয় করেছেন বিজেপি ঘনিষ্ঠ অভিনেতা অনুপম খের৷

Advertisements