নয়াদিল্লি: সুপ্রিম কোর্ট আগেই জানিয়ে দিয়েছে পরকীয়া অপরাধ নয়। আর এবার সামনে এল একটি ডেটিং অ্যাপের রিপোর্ট। সোমবারে প্রকাশিত এক রিপোর্টে দেখা যাচ্ছে, ৮ লাখ ভারতীয় পরকীয়া সম্পর্কে জড়িত।

অ্যাপের রিপোর্ট অনুযায়ী, জানুয়ারিতে যখন প্রথম সপ্তাহে মানুষজন তাঁদের ছুটি শেষ করে আবার কাজের মধ্যে ফেরে ঠিক সেই সময় ডেটিং অ্যাপের অ্যাক্টিভিটি গ্রাফ সবচেয়ে ওপরের দিকে। ওই সময়ই সবচেয়ে বেশি মানুষ ওই অ্যাপে সময় কাটিয়েছেন বলে খবর।

কোন শহরের পুরুষরা সবচেয়ে বেশি ওই অ্যাপ ব্যবহার করছে, সে সম্পর্কেও একটি উল্লেখযোগ্য রিপোর্ট পেশ করেছে ওই অ্যাপ কর্তৃপক্ষ। ২০১৯ সালের নভেম্বর মাসের তথ্য অনুযায়ী, বেঙ্গালুরু, মুম্বই, কলকাতা, দিল্লি, হায়দরাবাদ, চেন্নাই, আহমেদাবাদ, জয়পুর, নয়ডা ইত্যাদি শহর থেকে সবচেয়ে বেশি পরিমাণে পুরুষরা এই অ্যাপে বেশি সময় কাটায়। অন্যদিকে মহিলাদের ক্ষেত্রে এই শহরগুলি হল, বেঙ্গালুরু, মুম্বই, চেন্নাই, আহমেদাবাদ, জয়পুর, নয়ডা, কলকাতা ইত্যাদি শহর।

অ্যাপটি নিজেদের বিস্ফোরক অগ্রগতির কথাও তাঁদের রিপোর্টে উল্লেখ করেছে। রিপোর্ট অনুযায়ী ৫৬৭ শতাংশ বেড়ে গিয়েছে ওই অ্যাপের ব্যবহার। জানা গিয়েছে, নতুন বছরের শুরুতেই ব্যাপক হারে জনপ্রিয়তা লাভ করেছে এই অ্যাপটি।

২০২০-এর জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহেই ওই অ্যাপে সাবস্ক্রাইবার বেড়ে গিয়েছে প্রায় ৩০০ শতাংশ। গত দু’সপ্তাহের তুলনায় যা অনেকগুণে বেশি। অন্যদিকে সারা মাসের তুলনায় জানুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহে অ্যাপে সাবস্ক্রাইবার বেড়ে গিয়েছে ২৫০ শতাংশ।

অন্যদিকে একটি পরিসংখ্যান জানাচ্ছে, অনলাইনে ক্রমশ বাড়ছে এমন বিভিন্ন ধরনের চিটিং সাইটের প্রসার৷ এসব সাইটের কারণে ক্রমবর্ধমান হারে বাড়ছে পরকীয়া৷ অনেকেই এসব সাইটের সাহায্যে দাম্পত্য জীবন থেকে বেরিয়ে যাচ্ছে৷ কিংবা তাদের সঙ্গীর সঙ্গে প্রতারণা করছে। লক্ষ লক্ষ মানুষের গন্তব্য এখন ডেটিং ওয়েবসাইটগুলি৷

এ সম্পর্কে ইউনিভার্সিটি অফ ওয়াশিংটনের সমাজবিজ্ঞানের এক প্রফেসর পিপার স্কুয়ার্জ সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, আমার ধারণা, কিছু মানুষ তাদের সম্পর্কের বাইরে যৌনতা কামনা করে৷ কিন্তু, কীভাবে তা করবে, সে সম্পর্কে কোনও ধারণা করতে পারে না। তাদেরকে কেবল রাস্তা দেখিয়ে দিচ্ছে এসব সাইট।