হায়দরাবাদ: লক্ষ্য অলিম্পিকে পদক জয়। আর সেই লক্ষ্যকেই সামনে রেখে দেশের ৮ জন প্রথম সারির শাটলার করোনা আবহেই প্রস্তুতি শুরু করে দিলেন শুক্রবার। স্পোর্টস অথরিটি অফ ইন্ডিয়ায় অনুমতিতেই হায়দরাবাদের পুল্লেলা গোপীচাঁদ ব্যাডমিন্টন অ্যাকাডেমিতে প্রস্তুতি শুরু করে দিলে পিভি সিন্ধু, সাইনা নেহওয়ালরা।

তেলেঙ্গানা সরকারের সবুজ সংকেত পাওয়ার পরেই দেশের প্রথম সারির শাটলারদের অনুশীলন চালু করার ব্যবস্থা গ্রহণ করে স্পোর্টস অথরিটি অফ ইন্ডিয়া। উল্লেখ্য, গত ৫ অগস্ট থেকে রাজ্যে গাইডলাইন মেনে সমস্তরকম স্পোর্টিং ইভেন্ট চালু করার অনুমতি দিয়েছে তেলেঙ্গানা সরকার। সিন্ধু-সাইনা ছাড়াও ৭ অগস্ট অর্থাৎ শুক্রবার থেকে পুল্লেলা গোপীচাঁদ ব্যান্ডমিন্টন অ্যাকাডেমিতে অনুশীলন শুরু করলেন কিদাম্বি শ্রীকান্ত, অশ্বিনী পোনাপ্পা, বি সাই প্রনীথ, সাত্বিকসাইরাজ রানকিরেড্ডি এবং এন সিক্কি রেড্ডি।

প্রস্তুতির সময় শাটলার এবং কোচেদের স্বাস্থ্য সংক্রান্ত নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখে অ্যাকাডেমিটিকে বিভিন্ন কালার জোনে ভাগ করা হয়েছে। গ্রিন জোনে প্রবেশের অনুমতি রয়েছে একমাত্র অ্যাথলিট এবং কোচেদের। সাপোর্ট স্টাফ এবং অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ স্টাফদের জন্য বরাদ্দ করে হয়েছে আলাদা জোন। গ্রিন জোনে প্রবেশের অনুমতি নেই তাদের। রাজ্য সরকারের নির্দেশিকা মেনে স্পোর্টস অথরিটি অফ ইন্ডিয়া অ্যাথলিটদের জন্য একটি এসওপি (স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রোসিডিওর) তৈরি করেছে। সঙ্গে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের যাবতীয় গাইডলাইন মেনেই চলবে শাটলারদের প্রস্তুতি।

করোনা আবহে গাইডলাইন মেনে অনুশীলন শুরু হওয়ায় খুশি জাতীয় ব্যাডমিন্টন কোচ পুল্লেলা গোপীচাঁদ। তিনি জানিয়েছেন, ‘আমাদের এলিট শাটলাররা দীর্ঘ বিরতির পর পুনরায় অন-ফিল্ড ট্রেনিংয়ে ফিরল। এটা খুবই আনন্দের বিষয়। সম্পূর্ণ নিরাপদ পরিবেশে সমস্ত সরঞ্জাম সঙ্গে নিয়েই আমরা আবার অনুশীলন শুরু করেছি।’

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও