কলকাতা: শহর কলকাতা ও উত্তর ২৪ পরগণায় লাগামছাড়া সংক্রমণ৷ নিয়ন্ত্রণে আনা যাচ্ছে না দৈনিক মৃতের সংখ্যাও৷ উৎসবের পর এই সংখ্যাটা আরও বেড়ে যেতে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা৷

অষ্টমীর সন্ধ্যায় রাজ্য স্বাস্থ্য ভবনের বুলেটিনের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, একদিনে কলকাতায় আক্রান্ত প্রায় ৯০০ জন৷ তথ্য অনুযায়ী ৮৯৫ জন৷ ফলে মোট আক্রান্তের সংখ্যাটা ৭৫ হাজার ছাড়িয়ে গেল৷ অর্থাৎ ৭৫ হাজার ৬ জন৷

তুলনামূলক শহরে সুস্থতার হার কম৷ একদিনে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৮৫৩ জন৷ শুক্রবার ছিল ৮৬৬ জন৷ এই পর্যন্ত কলকাতায় মোট সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৬৫ হাজার ৫০০ জন৷ শহরে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যাটা বেড়ে ৭,৪০৯ জন৷ একদিনে বেড়েছে ২৩ জন৷

গত ২৪ ঘন্টায় কলকাতায় ১৯ জনের মৃত্যু হয়েছে৷ শুক্রবার ছিল ২৪ জন৷ সব মিলিয়ে শহরে মোট মৃত্যু হয়েছে ২,০৯৭ জনের৷ পাশাপাশি একদিনে উত্তর ২৪ পরগণায় মৃত্যু হয়েছে ১৪ জনের৷ শুক্রবার ছিল ১৬ জন৷ ফলে এই পর্যন্ত মোট মৃতের সংখ্যা ১,৪৬৪ জন৷

একদিনে উত্তর ২৪ পরগণায় আক্রান্ত ৮৯৬ জন৷ এই পর্যন্ত জেলায় মোট আক্রান্তের সমখ্যা ৭০ হাজার ছাড়াল৷ তথ্য অনুযায়ী, ৭০ হাজার ২৭ জন৷ অন্যদিকে একদিনে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৮৬১ জন৷ তার ফলে এই পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৬১ হাজার ৩১২ জন৷ অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যাটা বেড়ে ৭,২৫১ জন৷

কলকাতা ও উত্তর ২৪ পরগনা ছাড়া উদ্বেগ বাড়াচ্ছে আরও কয়েকটি জেলার সংক্রমণ৷ এগুলো হল -হাওড়া, দক্ষিণ ২৪ পরগণা, হুগলি,দুই মেদিনীপুর, নদিয়া ও দার্জিলিং৷

এদিনের স্বাস্থ্য দফতরের বুলেটিন অনুযায়ী, মোট আক্রান্ত যথাক্রমে হাওড়া (২৩,৭৬০), দক্ষিণ ২৪ পরগনায়(২২,৮১৬ ),হুগলি (১৬,৯৩২), পূর্ব মেদিনীপুর ( ১৩,৯৭৮) ও পশ্চিম মেদিনীপুর (১৩,১৮৬) জন,নদিয়া ( ১০,৯৭১) জন ও দার্জিলিং (১০,৯৭১) জন৷ বাকি জেলায় সংক্রমণ ১০ হাজারের নিচে৷

একদিনে যে ৫৯ জনের মৃত্যু হয়েছে তাদের মধ্যে কলকাতার ১৯ জন৷ উত্তর ২৪ পরগনার ১৪ জন৷ দক্ষিণ ২৪ পরগনার ৩ জন৷ হাওড়ার ২ জন৷ হুগলি ৫ জন৷ পূর্ব বর্ধমান ১ জন৷ পূর্ব মেদিনীপুর ৩ জন৷ বীরভূম ১ জন৷ নদিয়া ৪ জন৷ মুর্শিদাবাদ ২ জন৷ মালদা ২ জন৷ জলপাইগুড়ি ২ জন৷ দার্জিলিং ১ জন৷

দেশে এবং বিদেশের একাধিক সংবাদমাধ্যমে টানা দু'দশক ধরে কাজ করেছেন । বাংলাদেশ থেকে মুখোমুখি নবনীতা চৌধুরী I