তেহেরান: মারণ ভাইরাস করোনা থেকে মুক্তি খুঁজছে সারা বিশ্ব৷ কিন্তু অজ্ঞতার বশে করোনা থেকে মুক্তি পেতে মদ্যপান করে প্রাণ গেল ৬০০ জনের৷ হাসপাতালে ভর্তি প্রায় ৩ হাজার জন৷ ঘটনাটি ঘটেছে ইরানে৷ মধ্যপ্রাচের দেশগুলির মধ্যে ইরানে সবচেয়ে বেশি থাবা বসিয়েছে এই করোনা ভাইরাস৷

অ্যালকোহল মুক্তি দিতে পারে করোনা থেকে৷ এই বিশ্বাসেই উচ্চ-ঘনত্বযুক্ত অ্যালকোহল পান করেন কয়েক হাজার মানুষ৷ যার ফলে প্রাণ গিয়েছে ছ’জনের৷ মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করছেন আরও তিন হাজার জন৷ মঙ্গলবার এমনটাই জানিয়েছেন ইরানের জুডিসিয়াল প্রবক্তা গোলাম হোসেন ইসমাইলি৷ তিনি বলেন, ‘সংখ্যাটি খুব বেশি এবং আমাদের প্রত্যাশার বাইরে। অ্যালকোহল সেবন নিরাময় নয়, এটা মারাত্মক হতে পারে।’

তাসনিম নিউজ এজেন্সি-কে তিনি আরও জানান, ‘এর সঙ্গে জড়িত প্রচুর লোককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷ এতগুলো মানুষের মৃত্যু ও অপরাধমূলক কাজের জন্য তাদের অবশ্যই জবাবদিহি করতে হবে।’

ইরান হল মধ্যপ্রাচ্যের সেই দেশ, যেখানে করোন ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব সবচেয়ে বেশি৷ এই মারণ ভাইরাসে আক্রান্ত ৬২,৫৮৯৷ আর মারা গিয়েছেন ৩,৮৭২ জন৷ এখনও পর্যন্ত চিকিত্সকরা করোনাভাইরাস নিরাময়ের কোনও নিরাময় আবিষ্কার করতে পারেননি৷ কেবলমাত্র এই ভাইরাসে আক্রান্তদের উপসর্গগুলি চিহ্নিত করা গিয়েছে৷

দেশে করোনা সংক্রমণ রুখতে প্রথমবার মঙ্গলবার সংসদের অধিবেশন ডেকেছে ইরান৷ যেখানে সরাসরি সপ্তম দিনে নতুন সংক্রমণের সংখ্যা কমেছে বলে জানানো হয়েছে৷ বিধানসভার ২৯০ সদস্যের দ্বি-তৃতীয়াংশেরও বেশি সদস্য স্পিকার ও প্রবীণ রাজনীতিবিদ আলি লারিজনীর অনুপস্থিতিতে উপস্থিত হয়েছিলেন৷ ইরানের কমপক্ষে ৩১ জন সাংসদ করোনায় আক্রান্ত৷ কিন্তু রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন ফুটেজে দেখা গিয়েছে যে, করোনা সংক্রমণের বিস্তার রোধে সামাজিক দূরত্বের নির্দেশ মানছেন না অনেক সাংসদই৷ এরপরই দেশে একমাসের জন্য লকডাউন ঘোষণা করেছেন ইরান সরকার৷

এক সাংসদে মতে, করোনা বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আমাদের জরুরি ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নিতে হবে, না-হলে ইতিহাস আমাদের বিচার করবে। মঙ্গলবার স্বাস্থ্য মন্ত্রকের মুখপাত্র কিয়ানুশ জাহানপুর জানিয়েছেন, করোনায় আক্রান্ত হয়ে এদিন ১৩৩ জনের মৃত্যু হয়েছে৷ ফলে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩৮৮২৷ মারণ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সারা বিশ্বে এখনও পর্যন্ত ৭০ হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে৷ আক্রান্তের সংখ্যা ১৩ লক্ষ্যের বেশি৷