মুজফরাবাদ: জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের বিরোধিতা করে রাষ্ট্রের তোপের মুখে বহু মানুষ। ঘটনাটি পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীরের রাজধানী শহর মুজফরাবাদের।

অধিকৃত কাশ্মীরের নিলম ঝিলম নদীর উপরে একটি নির্মিয়মান জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র। কাজ সম্পন্ন হয়ে গেলে পাকিস্তানের অন্যতম বৃহৎ জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র হবে এটি। কিন্তু এই প্রকল্প নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে অনেক ক্ষোভ রয়েছে। যা নিয়ে ক্রমশ তৈরি হচ্ছে জটিলতা।

এই নিয়ে বিভিন্ন সময়ে বিক্ষোভ দেখিয়েছে স্থানীয় জনতা। বিক্ষোভ প্রতিহত করতেও নানাবিধ ব্যবস্থা নিয়েছে প্রশাসন। তবে পরিস্থিতি চরমে উঠেছে গত কয়েকদিনে। প্রশাসনের পক্ষ মুজফরাবাদের প্রায় ৬০ জন বিক্ষোভকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের বিরোধিতা করার অভিযোগে। শুধু গ্রেফতার নয়, বহু মানুষকে খুব খারাপভাবে পেটানো হয়েছে বলেও অভিযোগ।

প্রশাসনের এই বর্বরোচিত ব্যবহারের বিরুদ্ধে রবিবার এলাকায় বিক্ষোভ দেখান স্থানীয়রা। দির্ঘ সময় বন্ধ করে রাখা হয় দোকানপাঠ। বিশাল মিছিল করে প্রশাসনিক দফতরের সামনে গিয়েও বিক্ষোভ দেখানো হয়। ভারত সীমান্তের খুব কাছেই অবস্থিত হতে চলেছে ওই জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রটি।

১৯৮৯ সালে নিলম ঝিলম জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের চেষ্টা চালায়।এর পর ২০০৩ থেকে ২০০৮ পর্যন্ত এর সমীক্ষা চলে।কিন্তু ২০০৫ এর কাশ্মীর ভূমিকম্প প্রকল্পটিকে পিছিয়ে দেয়। এছাড়া অর্থের যোগান নিশ্চিত না হওয়ায় প্রকল্পটি অনিশ্চিত হয়ে পরে। এরপর ২০০৭ সালে চিনেরর এক বিদ্যুৎ সংস্থা এই জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের জন্য আগ্রহ দেখায়। তার পরে এই সংস্থাটি ২০০৮ সালে নিলম ঝিলম জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ শুরু করে।

২০১১ সালে নিলম নদীর উপর নির্মাণ সম্পূন বাঁদ থেকে কিছু উজানে নদীটিতে টানেল বা সূরঙ্গ নির্মাণ সম্পূর্ণ হয়। ঝিলম নদী কে নিলম নদীর সঙ্গে যুক্ত করতে ২৮ কিলোমিটার টানেল কাটা হয়। এই টানেলের নিলম নদীথেকে প্রথম ১৬ কিলোমিটার এক সঙ্গে পাশাপাশি দুটি একই ব্যাসের টানেল কাটা হয়েছে। এর পর টানেল দুটি যুক্ত হয়ে ৯ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করেছে। টানেলটি ঝিলম নদী পৌঁচ্ছোনর ৩৮০ মিটার আগেই উন্মমুক্ত হয়। এর পর ৩৮০ মিটার ক্যানালের দ্বারা টানেলটি ঝিলম নদীতে যুক্ত হয়।এর নির্মাণ কার্য এখনও চলছে।