দুবাই: ডেপুটি রোহিত শর্মা, অধিনায়ক বিরাট কোহলির পাশাপাশি ২০১৯ আইসিসি’র বর্ষসেরা পুরস্কার প্রাপকের তালিকায় নাম তুললেন ফাস্ট বোলার দীপক চাহার। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে গত বছর নভেম্বরে স্বপ্নের স্পেল চাহারকে এনে দিল বর্ষসেরা টি-২০ পারফরম্যান্সের শিরোপা।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ঘরের মাঠে সিরিজের তৃতীয় তথা শেষ ম্যাচে প্রথম ভারতীয় বোলার হিসেবে ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ততম ফর্ম্যাটে হ্যাটট্রিক করেন চাহার। হ্যাটট্রিক সহ মাত্র ৭ রানে তাঁর ৬ উইকেটের স্পেলই টি-২০ ক্রিকেটে এযাবৎ সেরা বোলিং পারফরম্যান্স। ২০১২ শ্রীলঙ্কার মিস্ট্রি স্পিনার অজন্তা মেন্ডিসের ৮ রানে ৬ উইকেট নেওয়ার নজির ভেঙে নাগপুরে নয়া নজির সেট করেন আগ্রার এই পেসার। স্বাভাবিকভাবেই টি-২০ ক্রিকেটে বছরের সেরা পারফরম্যান্স বেছে নিতে আইসিসি’কে বিশেষ কসরৎ করতে হয়নি।

২০১৮ অভিষেকের পর কেরিয়ারের ষষ্ঠ টি-২০ ম্যাচেই ইতিহাসের পাতায় নাম লেখানো চাহারের পারফরম্যান্সকে মান্যতা দেওয়ায় খুশি ক্রিকেট অনুরাগীরাও। নভেম্বরে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ওই ম্যাচে নিজের তৃতীয় ওভারের শেষ বলে শফিউল ইসলাম এবং চতুর্থ ওভারের প্রথম দুই বলে মুস্তাফিজুর রহমান ও আমিনুল ইসলামকে ফিরিয়ে হ্যাটট্রিক সম্পন্ন করেন চাহার। টি-২০ ক্রিকেটের ইতিহাসে এযাবৎ সেরা বোলিং পারফরম্যান্স স্বাভাবিকভাবেই নজরে চলে আসে আইসিসি’র।

এদিকে চাহারের পাশাপাশি ২০১৯ বর্ষসেরা ওয়ান-ডে ক্রিকেটার মনোনীত হয়ে শিরোনামে জাতীয় দলের ওপেনার রোহিত শর্মা। ওয়ান-ডে এবং টেস্ট দলের অধিনায়ক নির্বাচিত হওয়ার পাশাপাশি স্পিরিট অফ ক্রিকেট অ্যাওয়ার্ড ঝুলিতে পুড়ে নিলেন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি। তবে কোহলির টানা বিজয়রথ থামিয়ে বর্ষসেরা ক্রিকেটারের তকমা নিজের দখলে নিলেন ইংল্যান্ড অল-রাউন্ডার বেন স্টোকস। ২০১৯ ক্যালেন্ডার ইয়ারে ৫৯টি উইকেট নিয়ে বর্ষসেরা টেস্ট ক্রিকেটার নির্বাচিত হয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার প্যাট কামিন্স।

অন্যদিকে আইসিসি’র বর্ষসেরা আম্পায়ার নির্বাচিত হয়েছেন রিচার্ড ইলিংওর্থ। বর্ষসেরা টেস্ট একাদশে জায়গা করে নেওয়ার পাশাপাশি বর্ষসেরা উদীয়মান ক্রিকেটার হিসেবে নিজেকে তুলে ধরেছেন অস্ট্রেলিয়ার টপ-অর্ডার ব্যাটসম্যান মার্নাস ল্যাবুশেন।