গান্ধীনগর: জাতির জনক মহাত্মা গান্ধীর হত্যাকারী নাথুরাম গডসের জন্মজয়ন্তী পালন করার অভিযোগে ছয় ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ধৃত সকলেই হিন্দু মহাসভার সদস্য।

ঘটনাটি ঘটেছে মহাত্মা গান্ধীর নিজের রাজ্য গুজরাতে। উল্লেখযোগয বিষয় হচ্ছে, ওই এয়াজ্যেরই বাসিন্দা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আর দীর্ঘদিন ধরে ওই রাজ্যের শাসন ক্ষমতায় রয়ছে বিজেপি। এই রাজনৈতিক দলের বহু নেতা আবার নাথুরাম গডেসের প্রতি সহানুভূতিশীল।

আরও পড়ুন- গডসের কারণেই জনপ্রিয় হয়েছিলেন গান্ধী: বিজেপি বিধায়ক

নাথুরাম গডসে ১৯১০ সালের মে মাসের ১৯ তারিখে মহারাষ্ট্রে জন্ম গ্রহণ করেছিল। ওই রাজ্যের পুনে জেলার বারামাটি গ্রামে তার জন্ম হয়। সেই সময়ে পুনে জেলা বম্বে প্রেসিদেন্সির অধীনে ছিল। সেই নাথুরামের ১১৯ তম জন্মদিন পালন করে শ্রিঘরে যেতে হয়েছে ছয় হিন্দু মহাসভার সদস্যকে।

ধৃত ব্যক্তিরা সুরাতের লিম্বায়াত এলাকার সূর্যমুখী হনুমান মন্দিরে নাথুরাম গডসের জন্মজয়ন্তী অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিল। সোমবার তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সুরাতের পুলিশ কমিশনার সতীশ শর্মা। তাঁর কথায়, “গডসের ছবির সামনে ধূপকাঠি জালিয়ে, মিস্টি বিতরণ করে এবং ভজন গেয়ে নাথুরাম গডসের জন্মদিন পালন করা হয়েছে। ওই অনুষ্ঠানের মুহূর্ত ধরে রাখার জন্য ক্যামেরাম্যান ভাড়া করেছিল আয়োজকেরা।”

আরও পড়ুন- ‘ঐতিহাসিক সত্য বলেছি’, নাথুরাম গডসে বিতর্কে কমল হাসান

জাইত্র জনকের হত্যাকারী ব্যক্তির জমদিন পালন করায় অনেক দেশবাসীর ভাবাবেগে আঘাত করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন পুলিশ কমিশনার সতীশ শর্মা। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে হিঙ্গা ছড়ানো, হিংসায় মদত দেওয়া এবং সার্বভৌমত্বতে আঘাত করার অভিযোগে মামলা রুজু করা হয়েছে। ধৃত ওই ছয় ব্যক্তি হল- হীরেন মাস্রু, ভালা ভরদ, হিতেশ সোনার, যোগেশ প্যাটেল এবং মণিষ কালাল।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।