নয়াদিল্লি: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর আর্থিক প্যাকেজ ব্যাখ্যা করার তৃতীয় দিনে জোর দেওয়া হল কয়লা, অ্যাভিয়েশন সহ মোট আটটি সেক্টরে। প্রত্যেক বছর ১০০০ কোটি টাকার লাভ পাবে অসামরিক বিমান পরিষেবা বা অ্যাভিয়েশন সেক্টর।

এদিন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন আরও জানিয়েছেন, আরও ৬ টি বিমানবন্দরকে নিলামে দেওয় হবে। বেসরকারি সংস্থাকে আমন্ত্রণ জানানো হচ্ছে।

পিপিপি মডেলে ওই বিমানবন্দরগুলি পরিচালনা করা হবে৷ এর ফলে সরকারের কোষাগারে কয়েক হাজার কোটি টাকা আসবে বলেই আশা অর্থমন্ত্রকের৷ পাশাপাশি দেশের ১২টি বিমানবন্দরে বেসরকারি অংশীদারিত্ব আরও বাড়ানোর ঘোষণা করেছেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী।

অনেকেই ভেবেছিলেন বিমান সংস্থাগুলিকে কিছুটা স্বস্তি দিতে হয়ত সরাসরি আর্থিক প্যাকেজের ঘোষণা হবে৷ তার বদলে এদিন কেন্দ্রীয় সরকার জানিয়েছে, দেশের আকাশসীমাকে অসামরিক বিমান পরিবহণের জন্য যত বেশি সম্ভব ব্যবহার করার অনুমতি দেওয়া হবে৷

অর্থমন্ত্রীর দাবি, এতদিন দেশের আকাশসীমার ৬০ শতাংশে এতদিন অসামরিক বিমান পরিবহণের অনুমতি দেওয়া হতো৷ দেশের নিরাপত্তা এবং প্রতিরক্ষা সংক্রান্ত নিয়মাবলীর জন্যই এই শর্ত আরোপ করা হতো৷ এর ফলে অনেক বিমানকেই ঘুরপথে যাতায়াত করতে হতো৷ যার ফলে জ্বালানি বেশি পুড়ত, বিমান সংস্থাগুলির খরচা বাড়ত৷ পাশাপাশি গন্তব্যে পৌঁছতে সময়ও বেশি লাগত৷ কিন্তু এবার সেই বাধা সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে৷

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ