এথেন্স: ভয়াবহ ভূমিকম্পে কেঁপে উঠল আজিয়ান সাগরে তুরস্কের পশ্চিম উপকূল ও গ্রীক দ্বীপপুঞ্জ। তুর্কির বিপর্যয় ও জরুরি পরিস্থিতি মোকাবিলা প্রেসিডেন্সি (এএফএডি) জানিয়েছে, রিখটার স্কেলে কম্পনের মাত্রা ৬.৬।

স্থানীয় সময় অনুযায়ী, ১১ টা ৫০ নাগাদ এই কম্পন অনুভূত হয়েছে। ভূপৃষ্ঠ থেকে ১৬.৫ কিমি গভীরে এই ভূমিকম্প আঘাত হানে বলে জানিয়েছে এএফএডি।

ভূমিকম্প টের পাওয়ার পরেই আতঙ্কে ঘর বাড়ি ছেড়ে রাস্তায় বেরিয়ে আসেন তুরস্কের উপকূলবর্তী শহর ইজমিরের বাসিন্দারা। ইজমিরের বায়রাকলি ও বোর্নোভা জেলায় ৬ টি বাড়ি ধসে পড়েছে বলে জানা গিয়েছে।

তবে ঠিক কতটা ক্ষয় ক্ষতি হয়েছে বা কেউ আহত বা নিহত হয়েছে কিনা তা এখনও জানা যায়নি। খুব শিগগিরিই তা প্রকাশ্যে আসবে। ইতিমধ্যে উদ্ধারকাজ শুরু হয়েছে।

তুর্কি সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে, এজিয়ান এবং মারমারা এলাকায় কম্পন অনুভূত হয়েছে। ইস্তানবুলের গভর্নর জানিয়েছেন, পারথমিক ভাবে কোনও ক্ষয় ক্ষতির খবর নেই।

অন্যদিকে গ্রীসের সংবাদমাধ্যমেরা জানাচ্ছে, সামোস এবং অন্যান্য দ্বীপপুঞ্জের বাসিন্দারা তাদের বাড়িঘর ছেড়ে বাইরে বেরিয়ে আসেন। তবে তাৎক্ষণিক ভাবে কোনও ক্ষয় ক্ষতির ব্যাপারে জানাতে পারেনি।

প্রথম ভূমিকম্পের পরে উভয় দেশেই আফটার শক অনুভূত হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।