গুগলের জি-মেল যে সবচেয়ে জনপ্রিয় ওয়েব মেল তা বলার অপেক্ষা রাখে না৷ কিন্তু আপনার ব্যবহৃত এই মেলটি ঠিকমতো আছে তো? কারণ জানেন তো দুনিয়াজুড়েই হ্যাকাররা ঘুরে বেড়াচ্ছে৷ কখন সে ঢুকে পড়ে আপনার সব তথ্য জেনে নিয়ে বিপদ ঘটাতে পারে ৷ অতএব সাবধান৷ এখনই সতর্ক হোন৷
প্রথমত ব্যবহার করুন কঠিন ধরনের পাশওয়ার্ড৷ এক্ষেত্রে মনে রাখবেন যত বড় পাশওয়ার্ড হয় ততই নিরাপদ৷ তাছাড়া পাশওয়ার্ডটি অক্ষর, সংখ্যা এবং প্রতীক সম্মিলিত হলে ভাল হয়৷একই পাস ওয়ার্ড সব অনলাইন কাজের জন্য ব্যবহার করা উচিত নয়৷ কারণ সাইবার অপরাধীরা আপনার জি-মেল ঢোকার পাশাপাশি তারা যদি আপনার অনলাইন ব্যাংকিং ইত্যাদিতে ঢোকার চাবি পেয়ে যায় তাহলে সমূহ বিপদ৷
দ্বিতীয়ত দু-ধাপ যাচাইয়ের বিকল্প রাখুন৷ এটা আপনার গুগল অ্যাকাউন্টকে  অতিরিক্ত নিরাপত্তা দেবে ৷ এটা এমনই ব্যবস্থা যা নিশ্চয়তা দিচ্ছে একমাত্র আপনাকেই গুগল অ্যাপ অ্যাকসেস দিচ্ছে জি-মেল ব্যবহারে৷ এক্ষেত্রে একটি স্টান্ডার্ড ইউজার নেম এবং পাস ওয়ার্ড ছাড়াও একটা কোড রাখা যা মোবাইল ফোনে টেক্স মেসেজ হিসেবে পাওয়া যাবে৷ অথবা গুগল অথেনটিকেটর অ্যাপ ব্যবহার করুন৷ গুগুল অ্যাপ অ্যাকসেস করার আগে একটা ছোট যাচাই কোড ব্যবহার যা মোবাইল ফোনের মেসেজ থেকে আসবে৷গুগল অ্যাকাউন্ট লগ অন করার সময় অ্যাকাউন্ট সেটিং পাতায় যান এবং সেখানে ‘ইউজিং টু স্টেপ ভেরিফিকেশন’ লিঙ্ক-এ ক্লিক করুন পুরো প্রসেস চালু করার জন্য৷ এক্ষেত্রে যদি আপনাপ প্রাথমিক ফোনটি না পান তখন একটা ব্যাক আপ ফোন নম্বর ব্যবহার করুন যেটা ল্যান্ড লাইন অথবা মোবাইল যাই হোক না কেন?
তৃতীয়ত পর্যালোচনা করুন আপনার অ্যাকাউন্য অপশন৷ হাইজ্যাকারদের কাছ থেকে সুরক্ষিত রাখতে জি-মেল রিকোভরি অপশন আপনাকে সাহায্য করবে আপনার অ্যাকাউন্ট অ্যকসেস করতে এমনকী যদি আপনি পাস ওয়ার্ড ভুলেও যান৷ আপনার স্মার্টফোন সম্ভবত সহজতর, দ্রুততম এবং সবচেয়ে নিরাপদ ব্যবস্থা আপনার অ্যাকাউন্টকে রক্ষা করার জন্য- এমনকী আপনার ইমেলের চেয়েও কারণ আপনার সঙ্গে মোবাইল ফোনটিই সদাসর্বদা রয়েছে৷ সেক্ষেত্রে গুগল বলছে আপনি আপনার মোবাইল ফোন নম্বরটিই টাইপ করে দিন রিকোভারি টুল হিসেবে ৷  যদি দেখেন আপনার অ্যাকাউন্টে সন্দেহজনক কিছু ঘটছে অথবা গুগল তেমন কোনও বার্তা দিচ্ছে তখনই আপনাকে দেখতে হবে কখন শেষ আপনার অ্যাকাউন্টটি অ্যাকসেস করা হয়েছিল৷ সেখান থেকে বিচ্যুতি লক্ষ্য করুন৷
চতুর্থত HTTPS নিরাপত্তাযুক্ত থাকতে হবে৷ এক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে আপনি আপনার জি-মেল যেখানে সেখানে থেকে অ্যাকসেস করতে পারেন কিন্তু পাবলিক ওয়াই-ফাই হটস্পট ইত্যাদি ব্যবহারের ক্ষেত্রে ঝুঁকি থাকছে৷
পঞ্চমত সব সময় সতর্ক থাকবেন যাতে কোনও ভাবেই ব্যাংক অথবা ক্রেডিট কার্ড সম্পর্কিত তথ্য কেউ জানতে চাইলে তা জানিয়ে দেবেন না৷ এই সব জানতে চেয়ে কোনও ই-মেল এলে তা অগ্রাহ্য করুন৷

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ