নয়াদিল্লি:  সরতেই হচ্ছে পিসিকে৷ ক্ষমতার কেন্দ্রে তিনি থাকছেন না সেটা স্পষ্ট জন রায়ে৷ বরং ক্ষমতায় আসতে চলেছেন ভাইপো৷ এমনই ইঙ্গিত স্পষ্ট হয়ে গেল৷ পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা ভোট যেটা লোকসভা ২০১৯ সালের সেমিফাইনাল হিসেবে চিহ্নিত তার রায়ে চারটি রাজ্যেই ক্ষমতাসীন বিজেপি প্রবল ধাক্কা খেতে চলেছে৷ প্রতি ক্ষেত্রেই বিরাট শক্তি নিয়ে উঠে আসছে কংগ্রেস ও অ-বিজেপি শক্তি৷

সেই রেশ ধরে রাজস্থান বিধানসভা নির্বাচনে ক্ষমতা হারাচ্ছে বিজেপি৷ এমনই দাবি জাতীয়স্তরের একাধিক সংবাদ মাধ্যমের এক্সিট পোলের৷ তাতে স্পষ্ট, এই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বসুন্ধরা রাজে সিন্ধিয়ার পতন আসন্ন৷ আবার তাঁরই ভাইপো তথা মধ্যপ্রদেশের তরুণ কংগ্রেস নেতা জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া চলে গিয়েছেন সেই রাজ্যের ক্ষমতার দোরগোড়ায়৷

একাধিকবার মুখ্যমন্ত্রী হওয়া পিসি বসুন্ধরা যেমন বিজেপির হেভিওয়েট নেত্রী হিসেবে রাজস্থানের কুর্সিতে বসেছিলেন৷ দু বারের মুখ্যমন্ত্রী তিনি৷ আর ভাইপো তথা মধ্যপ্রদেশের তরুণ প্রজন্মের কংগ্রেস নেতা জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার কাছে প্রথম বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রীর পদের হাতছানি৷ এই সিন্ধিয়া পরিবারের কন্যা বসুন্ধরা, তাঁর ভাই প্রয়াত মাধব রাও সিন্ধিয়া৷

এবিপি-লোকনীতি-সিএসডিসি এক্সিট পোল বলেছে-
মধ্যপ্রদেশ ২৩০টি আসন
বিজেপি ৯৪
কংগ্রেস ১২৬
অন্যান্য ১০

নিউজ ২৪-পিএসইসিই বলেছে
মধ্যপ্রদেশে বিজেপি- ১১০
কংগ্রেস-১১৫
অন্যান্য-১০

ইন্ডিয়া টুডে-অ্যাক্সিস রিপোর্ট
মধ্যপ্রদেশে বিজেপি ১০২-১২০
কংগ্রেস-১০৪-১২২
বিএসপি-১-৩
অন্য-৩-৮

রাজস্থানে ২০০টি আসনের নির্বাচনে প্রায় সব এক্সিট পোল কংগ্রেসকে পূর্ণ সংখ্যাগরিষ্ঠতা দিয়েছে৷
এই রাজ্যে আজ তকের এক্সিট পোল-
১১৯-১৪১টি আসন পাচ্ছে কংগ্রেস৷
বিজেপি পাচ্ছে ৫৫-৭২টি আসন৷
অন্যরা পাচ্ছে- ৪-১১টি আসন৷

এবিপি নিউজের এক্সিট পোলের রিপোর্ট ছত্তিশগড়ে কড়া টক্কর হচ্ছে৷ এখানে কংগ্রেস ক্ষমতায় আসতে পারে বলেই জানানো হয়েছে৷ কিছু রিপোর্টে বলা হয়েছে এই রাজ্যে বিজেপি ক্ষমতায় থাকতে পারে ফের৷

তেলেঙ্গানা নির্বাচনে বিধানসভা আসনের দখলে কেসিআর চমক অটুট রইল বলেই জানাচ্ছে বিভিন্ন এক্সিট পোল৷

কংগ্রেস শাসিত মিজোরাম ঘিরেও নজর সবার৷ কারণ এই রাজ্যে বিজেপি ক্ষমতায় এলে উত্তর পূর্ব ভারতে তাদের মিশন সম্পূর্ণ হবে৷ এক্সিট পোল রিপোর্ট বলছে, মিজোরামে কংগ্রেস ও বিরোধী এমএনএফের মধ্যে কড়া লড়াই চলছে৷ বিজেপি এখানে তৃতীয় শক্তি হয়েই থাকতে পারে৷ তবে ফল পরবর্তী সমীকরণ কী হবে তা এখনো স্পষ্ট নয়৷