নয়াদিল্লি: আসন্ন বাজেট অধিবেশনের সময় যাতে নয়া তিন কৃষি আইন বাতিল হয় , সেই দাবি তুলল পাঁচ বাম দল। এক বিবৃতিতে তাদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, সরকার অবিলম্বে এমন সিদ্ধান্তের কথা আন্দোলনরত কৃষকদের কাছে জানিয়ে দিক । এই বাম দলগুলি কেন্দ্রকে পরামর্শ দিয়েছে, কৃষি আইনের ব্যাপারে একগুঁয়েমির মনোভাব ত্যাগ করতে।

উক্ত বিবৃতিটিতে স্বাক্ষর করেছেন সিপিএম-এর সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি, সিপিআই-এর সাধারণ সম্পাদক ডি রাজা, সিপিআই(এমএল) লিবারেশন-এর সাধারণ সম্পাদক দীপঙ্কর ভট্টাচার্য, আরএসপি’র সাধারণ সম্পাদক মনোজ ভট্টাচার্য এবং  ফরওয়ার্ড ব্লকের সাধারণ সম্পাদক দেবব্রত বিশ্বাস।

চলতি সপ্তাহ থেকে বাজেট অধিবেশন শুরু হচ্ছে। সেই প্রসঙ্গে এই বাম দলগুলির বক্তব্য,ইতিমধ্যেই তিন কৃষি আইন আঠারো মাস স্থগিত রাখার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে এই সরকার। কিন্তু বাস্তবে আইনগুলি তৈরি হয়েছে সংসদে। তাতে স্বাক্ষর করেছেন দেশের রাষ্ট্রপতি। সেটা গেজেট বিজ্ঞপ্তি আকারেও প্রকাশিত হয়েছে। এরফলে এই আইন এভাবে স্থগিত রাখা যায় না।তা পুরোপুরি বাতিল না হওয়া পর্যন্ত আইনগুলি বাস্তবায়নযোগ্য থেকে যাচ্ছে বলে তাদের অভিমত।

পাশাপাশি এই বাম দলগুলির অভিমত, যুক্তিনিষ্ঠ মনোভাব নিয়েই সরকারের এই আইনগুলি বাতিল করা উচিত । তার পরে কৃষি সংস্কার নিয়ে কৃষক এবং রাজ্য সরকার সহ সংশ্লিষ্ট সকলের সঙ্গে আলোচনায় বসা সরকার। তখন সাংসদদের মধ্যে মত বিনিময়ের জন্য সংসদে খসড়া আইনের প্রস্তাব পেশ করার কথা তাদের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে।

প্রায় দুমাস ধরে দিল্লি সীমান্তে এই নয়া কৃযি আইনের বিরোধিতা করে আন্দোলনে নেমেছে কৃষকেরা।তাদের ওই আন্দোলনের প্রভাব পড়তে দেখা গিয়েছে দেশের নানা প্রান্তে। এই পাঁচ বাম দলের যৌথ বিবৃতিতে, এই আন্দোলনের প্রতি পূর্ণ সমর্থন ও সংহতির কথাও ফের একবার ঘোষণা করা হয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।