মালদা: এনআরসি ও ক্যাব বিরোধী প্রতিবাদে আন্দোলনে নামে রাজ্যের সাথে মালদার সাধারন মানুষ। আন্দোলনর রোশে একাধিক বাস ভাঙচুর ও আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়। পাশাপাশি ট্রেনের ভাঙচুর,আগুন ও স্টেশনে ভাাঙচুর চালায়। একাধিক জায়গায় রেল লাইন উপরে ফেলা হয়। এরই মধ্যে মঙ্গলবার পূর্ব রেলের মালদা ডিভিশনের ডিআরএম ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যান।

জানা গিয়েছে, ক্যাব আইন পাশ হওয়ার পর থেকে রাজ্য থেকে জেলা ক্যাব আইন প্রত্যাহরের দাবিতে জ্বলে ওঠে। ফলে জাতীয় সড়ক ও ট্রেনের রেল লাইনে আগুন ধরিয়ে দেয়। ভাঙচুর করা হয় স্টেশনে। এমনকি টিকিট কাউন্টার ভেঙে দেওয়া হয়। যার ফলে উত্তরবঙ্গ ও দক্ষিনবঙ্গ গামী প্রচুর ট্রেন বাতিল করতে বাধ্য হয়। এখন বহু ট্রেন বাতিল হয়। যদিও মঙ্গলবার কাঞ্চনজঙ্ঘা চালু করা হয়।

উত্তরবঙ্গের সঙ্গে দক্ষিণবঙ্গের রেল যোগাযোগের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ স্টেশন ভালুকা রোড স্টেশন। রেল পরিষেবার ক্ষেত্রে এই স্টেশনটি দুরপাল্লা ট্রেনের গতি যেমন নিয়ন্ত্রণ করে ঠিক তেমনি এক্সপ্রেস থেকে মালগাড়ি কোন ট্র্যাক দিয়ে চলবে তা নির্ধারণ করে। অটোমেটিক সিগন্যাল ব্যবস্থার মাধ্যমে পরিচালিত হয় রেলগাড়ি। এই অটোমেটিক সিগন্যাল ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রক ভূমিকা পালন করত এই ভালুকা রোড স্টেশন। ক্যাব ও এনআরসি নিয়ে বিক্ষোভকারীদের তান্ডবে গত দুইদিন আগে তছনছ হয়েছে এই ভালুকা রোড স্টেশন।

অগ্নিসংযোগ ঘটানো হয় এর ফলে ভালুকা রোড স্টেশনের রেল পরিষেবার অটোমেটিক যান্ত্রিক যন্ত্রাংশ পুড়ে ছাঁই হয়ে গেছে। রেল পরিষেবার কন্ট্রোল প্যানেল নষ্ট। ফলে সিগন্যাল বিকল। রেল কোন ট্রাক দিয়ে চলবে তাও বিকল। ফলে স্তব্ধ ট্রেন। রেল কর্তারা মেরামতি করছেন। তবে রেল পরিষেবার স্বাভাবিকভাবে কবে চলবে তা নিয়ে এখনও সন্দিহান।

আর তার ফলে এখনও অনির্দিষ্টকালের জন্য উত্তরবঙ্গের সঙ্গে দক্ষিণবঙ্গ তথা উত্তর-পূর্ব ভারত ও কাঠিহার ডিভিশনের রেল পরিষেবা বন্ধ। এদিকে স্টেশন গুলির পরিস্থিতি ক্ষতিয়ে দেখতে পূর্ব রেলে মালদা ডিভিশনের ডি আর এম পরিদর্শনে যান। পরিদর্শনে গিয়ে ডি আর এম জতিন্দ্র কুমার জানান, মালদা ডিভিশনের রেলের ক্ষতির পরিমাণ ২৫কোটি টাকা। ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হতে পাঁচদিন সময় লাগবে।

যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল শুরু হতে সময় লাগবে আরও সাত দিন। তবে পরিষেবা স্বাভাবিক হতে দেড় মাস পর্যন্ত সময় লাগতে পারে। অনেক স্টেশনের শৌচালয়, টিকিট কাউন্টার পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। যারা এই ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।