লাদাখ: জলে,স্থলে,আবার বরফেও৷ চারিদিক বরফে ঢাকা৷ হাড়হিম ঠান্ডা৷ তাতেও কুছ পরোয়া নেহি৷ হিমাঙ্কের নিচে থাকা তাপমাত্রায়, বরফের হার হিমে যোগাসন করলেন ভারতীয় সেনা৷ লাদাখের ১৮০০০ ফুট ওপরে দেখা গেল এই দৃশ্য৷ বৃহস্পতিবার সকালে লাদাকের বরফভূমে যোগাসন করল ইন্ডিয়ান আর্মড ফোর্স ৷ সূর্য নমস্কার দিয়ে শুরু হয় যোগাসন৷ ভারত-তিব্বত সীমান্তের কাছে হিমবীর সেনারা যোগাসন করলেন৷ AYUSH মন্ত্রকের তরফে ভিডিওটি ট্যুইটে পোস্ট করা হয়৷

শুধু লাদাকেই নয় অরুণাচল প্রদেশের লোহিতপুরে দেখা গেল ‘নদী যোগা’৷ যেখানে, ডিগারু নদীতে নেমে এক বুক জলে দাঁড়িয়ে যোগাসন করছেন সেনারা৷ অরুণাচলের আইটিবিপি জওয়ান নদীতে নেমে করলেন অভিনব যোগাসন৷

যোগাসনকে বরাবার গুরুত্ব দিয়ে এসেছেন প্রধানমন্ত্রী৷ তিনি নিজেও যোগাভ্যাসের মধ্যে থাকেন৷ দেরাদুনে এসে তিনি জানান, যোগাসন আসলে মানুষের স্বাস্থ্যবিমা ৷ যোগাসন অভ্যাসের, যা দিনের শুরুকে ইতিবাচক করে৷২০১৫ সালের ২১ জুন যোগ দিবসের সূত্রপাত৷ সেদিন দিল্লির রাজপথে প্রায় ৩০ হাজার মানুষের সঙ্গে যোগাসন করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী৷ ২০১৪ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর রাষ্ট্রসংঘের অধিবেশনে যোগাসনকে আন্তর্জাতিক ভাবে উদযাপনের বার্তা দেন প্রধানমন্ত্রী৷ যা মান্যতা দেয় রাষ্ট্রসংঘ৷ তারপর থেকেই বিশ্বব্যাপী যোগ দিবস পালন করা হয়৷বৃহস্পতিবার দেরাদুনে ফরেস্ট রিসার্চ ইনস্টিটিউটে প্রায় ৫৫ হাজার মানুষের সঙ্গে যোগাসন করেন নরেন্দ্র মোদী৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I