সুভাষ বৈদ্য,কলকাতা: বৃহস্পতিবার থেকে পশ্চিমবঙ্গে ৪৮ ঘন্টার লকডাউন৷ এমনই একটি ভুয়ো খবর প্রকাশিত হয়েছে৷ পুলিশের নজরে আসতেই আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছে পুলিশ৷

বুধবার কলকাতা পুলিশ টুইট করে জানিয়েছে, প্রকাশিত খবরটি ভুয়ো৷ এটি একটি পুরনো খবর৷ যা আতঙ্ক তৈরির জন্য সর্বশেষ সংবাদ হিসাবে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে প্রচারিত হচ্ছে৷ ভুয়ো খবর ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে৷

সূত্রের খবর, ভুয়ো খবরটিতে বৃহস্পতিবার থেকে পশ্চিমবঙ্গে ৪৮ ঘন্টার লকডাউনের কথা বলা হয়েছে৷ তারা এখানেই থেমে থাকেনি, খবরে প্রকাশ,ওই দুই দিনে কোনও ট্রেন, ফ্লাইট পরিষেবা চালু থাকবে না৷ বন্ধ থাকবে বাজারগুলিও৷ শুধু প্রয়োজনীয় পরিষেবাগুলি ছাড় দেওয়া হবে৷

এছাড়া ওই খবরে কোন জেলায় ক’টি কনটেইন্টমেন জোন রয়েছে,তাও উল্লেখ করা হয়েছে৷ যদিও কনটেইন্টমেন জোনের বর্তমান যে সরকারি তালিকা তার সঙ্গে কোনও মিল নেই৷

নবান্ন সূত্রে খবর, পশ্চিমবঙ্গে বর্তমানে ৩ হাজার ৩৫২ টি কনটেইনমেন্ট জোন রয়েছে৷ এর মধ্যে শহর কলকাতায় মাত্র একটি৷ কলকাতা পুরসভার ৮নম্বর বোরোর ৬৯ ওয়ার্ডের ২২/১ বালিগঞ্জ সার্কুলার রোড ( শুধু ফাস্ট ফ্লোর)৷

এছাড়া হাওড়ায় ৫৯ টি কনটেইনমেন্ট জোন৷ দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ৩৩টি, উত্তর ২৪ পরগণায় ৮ টি,হুগলী ১৮ টি,নদীয়ায় ৮৭০ টি,পূর্ব মেদিনীপুর ২৭ টি,পশ্চিম মেদিনীপুর ৩৫১ টি,পূর্ব বর্ধমান ৫৬৩ টি,মালদা ৪ টি,জলপাইগুড়ি ১৪ টি,দার্জিলিং ৭ টি,কালিম্পং ২৮ টি,উত্তর দিনাজপুর ৩১৬ টি,দক্ষিণ দিনাজপুর ১১ টি,মুর্শিদাবাদ ৪৭ টি,বাঁকুড়া ৪৬ টি,বীরভূম ১২৭ টি,কোচবিহার ৩৩৫ টি,পুরুলিয়া ৪৩৮ টি,আলিপুরদুয়ার ৪৮ টি,ঝাড়গ্রাম ১ টি কনটেইনমেন্ট জোন৷ শুধুমাত্র পশ্চিম বর্ধমানে কোনও কনটেইনমেন্ট জোন নেই৷ অর্থাৎ কনটেইনমেন্ট মুক্ত জেলা৷

তবে আনলক-৬ এর নির্দেশিকা অনুযায়ী, আগামী ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত কনটেইনমেন্ট জোনগুলিতে লকডাউন জারি থাকবে৷ মঙ্গলবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক জানিয়েছে, কনটেইনমেন্ট জোনগুলিতে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত লকডাউন জারি থাকবে৷ তবে আগের মতোই বিভিন্ন রাজ্যের মধ্যে মানুষ ও পরিবহন চলাচল করতে পারবে৷ সে ক্ষেত্রে কোনও অনুমতি লাগবে না৷

জেলবন্দি তথাকথিত অপরাধীদের আলোর জগতে ফিরিয়ে এনে নজির স্থাপন করেছেন। মুখোমুখি নৃত্যশিল্পী অলোকানন্দা রায়।