বেজিং: ক্রমশ বাড়ছে মৃতের সংখ্যা৷ চিনে লেকিমা টাইফুনের হামলায় কম করে ৪৭ জন নিহত, এবং ২১ জন আহত হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে৷ সোমবার ১২ অগস্ট পর্যন্ত এমনই তথ্য উঠে এসেছে৷ ট্রেন ও বিমান পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

জানা গিয়েছে, ১০ লক্ষেরও বেসি মানুষকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আছড়ে পড়ার সময় এর গতিবেগ ছিল ১৮৭ কিলোমটার প্রতি ঘণ্টা। এটি ছিল এই বছরের নবম সাইক্লোন। এর জেরে চিনের একটা বড় অংশে প্রবল বৃষ্টি হয়েছে।

চিনের এই শক্তিশালী সাইক্লোনে নাম লেকিমা। জরুরি বিভাগের সমস্ত কর্মীদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। তৈরি রাখআ হয়েছে পর্যাপ্ত ত্রাণ।

উপকূলবর্তী শহর সাংহাইয়ের হাজার হাজার মানুষকে সরে যেতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ইয়াংচি নদীর পূর্বাংশ এবং ইয়োলো নদীর তীববর্তী এলাকায় বন্যা সতর্কতা জারি করা হয়েছিল। সতর্ক থাকতে বলা হয়েছিল জিয়াংশু ও শ্যানডং প্রদেশের বাসিন্দাদেরও। গভীর সমুদ্রে যে সমস্ত জাহাজ রয়েছে সেগুলিকে দ্রুত নিরাপদ জায়গাতে সরে যাওয়ার জন্যে নির্দেশও দিয়েছে প্রশাসন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I