হাওড়া: রূপালি পর্দা থেকে তোলা ঠিক যেন এক টুকরো সিনেমার দৃশ্য। ৪০ টি ট্রাকের ওপর দাঁড়িয়ে আছে ৪৫০ টি ট্রেনের কোচ। যা কিনা স্বাধীনতার পর তো ভালো, বিগত ১০০ বছরেও কেউ দেখেনি। কিন্তু এবার দেখতে হচ্ছে, সৌজন্যে লকডাউন।

ইতিহাসের পাতায় এই প্রথমবার। ভারতীয় রেল পুরোপুরি শাটডাউন। এক মালগাড়ি ছাড়া ২৪ মার্চের পর থেকে গড়ায়নি ট্রেনের চাকা। আগের ১০০ বছরের ইতিহাসে এমন কোনও রেকর্ড নেই ভারতীয় রেলের।

হাওড়া ডিভিশন পশ্চিমবঙ্গ সহ বিহার এবং ঝাড়খণ্ডের কিছু অংশ জুড়ে ৪০০ কিলোমিটারেরও বেশি অঞ্চল জুড়ে রয়েছে। এই এলাকায় তৈরি সমস্ত ট্রেনগুলিকে মূলত টিকিয়াপাড়া কোচ ইয়ার্ডে রক্ষণাবেক্ষণের জন্য রাখা হয়।

রেলের আধিকারিকরা জানাচ্ছেন, সম্ভবত প্রথমবার এমন ঘটনা ঘটছে, যখন এই বিভাগে কর্মরত ১২০০ কর্মচারীর মধ্যে মাত্র ৫০ জন কাজে আসছেন। তাও তাঁরা কাজ করছেন ট্রেনে আইসোলেশন ওয়ার্ড তৈরিতে। করোনার চিকিৎসার জন্য ট্রেনের মধ্যে আইসোলেশন ওয়ার্ড গড়ে দিয়ে দেশবাসীকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে ভারতীয় রেল।

ওই অধিকর্তা আরও জানিয়েছেন, এটাই প্রথমবার যখন টিকিয়াপাড়া কোচিং ইয়ার্ড একসঙ্গে ৪৫০ কোচকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখতে পাচ্ছে। এটা গত এক শতাব্দীতে হয়নি।

একটি জাতীয় সংবাদমাধ্যমকে দেয়া স্বাক্ষাৎকারে সিনিয়র সেকশন ইঞ্জিনিয়ার একে রায় জানিয়েছেন, “আমার ৩৩ বছরের চাকরিতে আমি কখনই এমন পরিস্থিতি দেখিনি। আমাদের প্রায় ১,২০০ জন কর্মী রয়েছেন, যার মধ্যে ৫২ থেকে ৫৫ জন আইসোলেশন কোচ তৈরি করতে কাজে আসছেন। বেশিরভাগ কর্মী বাড়িতেই আছেন। সমস্যা হচ্ছে আমরা এখানে প্রতিদিন আসতে পারছি না। “