পূজা মণ্ডল, কলকাতা : আগামীকাল বৃহস্পতিবার ২৫ শে বৈশাখ। বিশ্বকবি রবি ঠাকুরের জন্মদিন। তার ঠিক একদিন আগেই ওনারই বাড়িতে পুরস্কারে সম্মানিত হলেন সাহিত্যিক সঞ্জীব চট্টোপাধ্যায়। বুধবার জোড়াসাঁকো ক্যাম্পাসে অনুষ্ঠিত হয় রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪৪ তম বার্ষিক সমাবর্তন অনুষ্ঠান। পূর্ব ঘোষণা মতই অনুষ্ঠানে ডি.লিট সম্মানে ভূষিত করা হয় সাহিত্যিক-লেখক সঞ্জীব চট্টোপাধ্যায়কে। একই সঙ্গে এদিন ডি.লিট সম্মানে ভূষিত হলেন ভারতীয় শাস্ত্রীয় নৃত্যশিল্পী শ্রীমতি সোনাল মানসিংহ এবং ভারতীয় শাস্ত্রীয় তবলা শিল্পী পণ্ডিত স্বপন চৌধুরী।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের রাজ্যপাল তথা বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য কেশরীনাথ ত্রিপাঠি। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রখ্যাত শিক্ষাবিদ ড. ভি এন ঝা। বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয় এদিন সকাল ১০ টায়।

ডি.লিট সম্মান পাওয়ার পর kolkata 24×7 কে সঞ্জীববাবু জানান, “কি বলুন তো, আমার তো নিজেরই একটা সংকোচ হচ্ছে এই কারণে যে, এই সম্মান অর্জন করার মত যোগ্যতা কি আমি অর্জন করেছি! এখন সচেতন হওয়ার সময় এসেছে, এই কারণেই যে, যা আগে করেছি তা তো করা হয়ে গেছে, এই বার যা করব, সৃজনমূলক কাজ, সেটা যেন আরও উঁচু দরের হয়। তার কারণ পদস্খলন হলে তো হবে না, ভ্যালু বাড়াতে হবে। আমার দায়িত্ব অনেকটা বেড়ে গেল। আমাকে যে আজ এই অভূতপূর্ব অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে সম্মানিত করা হল এতে কোনও ভুল হয় নি তো!”

এদিন স্টেট অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হয় মনিপুরী নৃত্য শিল্পী শ্রীমতি কলাবতী দেবীকে, থিয়েটার শিল্পী শ্রীমতী মায়া ঘোষ, সেতার বাদক পণ্ডিত মৃণাল নাগ এবং অঙ্কন শিল্পী শ্রী ওয়াসিম আর কাপুরকে।

লোকসংগীতে গবেষণার জন্য আচার্য দীনেশ চন্দ্র সেন মেমোরিয়াল অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হয় শ্রী শুভেন্দু মাইতিকে। ৯৯ জন পি এইচ ডি স্তরে গবেষণা রত পড়ুয়াকে এদিন সম্মানিত করা হয়। ৬২ জন কে এম ফিল ডিগ্রী প্রদান করা হয়। ৩৮ জনকে ‘রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয় মেডেল’ দেওয়া হয়।

এদিনের অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সব্যসাচী বসু রায় চৌধুরী বলেন, “আগামিকাল কবি গুরুর জন্মদিন, আমরা তা পালনের জন্য সর্বতভাবে প্রস্তুত।”