শিলিগুড়িঃ  ভোট প্রচারে গিয়ে বারবার রাজ্যে ৪২টি লোকসভা আসনের মধ্যে ৪২টি আসনেই তৃণমূলের জয়ের দাবি তুলেছিলেন নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুধু তাই নয়, বিজেপি বাংলায় একটা আসনও পাবে না বলে দাবি করেছিলেন। কিন্তু গত ২১ শে মে ফলপ্রকাশের পর দেখা যায় অভাবনীয় ভাবে বাংলায় বিজেপি ঝড়। এক ধাক্কায় ২ থেকে ১৮টি আসনে পৌঁছে গিয়েছে বঙ্গ বিজেপি। রাজ্যে এভাবে বিজেপির বাড়বাড়ন্তে যথেষ্ট চিন্তার ভাঁজ পড়েছে খোদ নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কপালে।

একদিকে বাংলায় গেরুয়া শিবিরের উত্থান অন্যদিকে ক্রমশ তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদানের সংখ্যা বাড়ছে। আর সেই তালিকায় শাসকদলের বিধায়ক থেকে সাধারণ নেতা-কর্মীরা তো রয়েছেই।

ইতিমধ্যে বিজেপির হাতে এসেছে ভাটপাড়া সহ একাধিক তৃণমূল পরিচালিত পুরসভা। বিজেপির হাতে আসতে চলেছে আরও তিন-তিনটি পুরসভা। ইতিমধ্যে সেই সমস্ত পুরসভার কাউন্সিলররা বিজেপিতে যোগদান করেছে। যদিও মুকুল দায় দাবি করেছেন, শুধু দুই কিংবা তিনটে নয়, আগামী কয়েকমাসের মধ্যেই বহু পুরসভাই তাঁদের হাতে চলে আসবে। শুধু তাই নয়, গত কয়েকদিন আগেই বিজেপিতে নাম লিখিয়েছেন নোয়াপাড়ার তৃণমূল বিধায়ক সুনীল সিং, বনগাঁর বিধায়ক। আর এভাবে গেরুয়া শিবিরে ক্রমশ শাসকদলের বিধায়কদের ভিড় বাড়ায় চিন্তার ভাঁজ ক্রমশ বাড়ছে দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের।

যদিও গত কয়েকদিন আগেই দলের নেতা-কাউন্সিলারদের হুঁশিয়ারি দিয়ে দলনেত্রী বলেছেন, যাদের যাওয়ার তাঁরা যেন এখনই চলে যান। ১ জনের জায়গায় ৫০ জন কর্মী তৈরি করবেন বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। একদিকে যখন এহেন বক্তব্য রাখছেন দলনেত্রী অন্যদিকে অতি গোপনে বিজেপির দিকে পা বাড়িয়ে তৃণমূলের বহু বিধায়ক।

সূত্রে খবর, বিজেপিতে নাম লেখাতে পারেন উত্তরবঙ্গের চার তৃণমূল বিধায়ক। ইতিমধ্যে নাকি তাঁদের সঙ্গে বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বের কথাও প্রায় হয়ে গিয়েছে বলে সূত্রে জানা গিয়েছে। এখন শুধু সবুজ সঙ্কেতের অপেক্ষা। আর তা পেয়ে গেলেই শাসকদলের জার্সি ছেড়ে বিজেপির ‘জামা’ গায়ে চড়াবেন তাঁরা। যদিও এই বিষয়ে পুরোপুরিভাবে স্পিকটি নট বিজেপি নেতৃত্ব। এমনকি তৃণমূলের তরফেও এই বিষয়ে কোনও মন্তব্য করা হয়নি। তবে তৃণমূলের দাবি, নেত্রী জানিয়েই দিয়েছেন যে যারা যাওয়ার তাঁরা চলে যেতেই পারে।

উল্লেখ্য, লোকসভা নির্বাচনে উত্তরবঙ্গে ভালো ফল করেছে বিজেপি। উত্তরের একাধিক লোকসভা আসন বিজেপির হাতে এসেছে। বালুরঘাট, কোচবিহার, দার্জিলিংয়ের মতো গুরুত্বপূর্ণ আসন বিজেপির পকেটে। লোকসভার পাশাপাশি বিধানসভা উপনির্বাচনেও বিজেপির ভালো ফল হয়েছে। বেশ কয়েকজন বিধায়কও পেয়েছে বঙ্গ বিজেপি। লোকসভা ফলাফলের নিরিখে বহু বিধানসভা আসনে এগিয়ে রয়েছে বিজেপি। উত্তরে শাসকদলের এত খারাপ ফলের কারণ খুঁজতে বসেছে শাসকদল। ইতিমধ্যে জেলাস্তরে তৃণমূলের একাধিক নেতৃত্বকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। সেখানে নতুনদের জায়গা করে দেওয়া হয়েছে। আর যা নিয়ে উত্তরবঙ্গের বহু নেতা-কর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ তৈরি হয়েছে। এই অবস্থায় বিধায়কদের দলবদলের এই সম্ভাবনা বেশ তাৎপর্যপূর্ণ বলেই দেখছেন রাজনৈতিক কারবারিরা।