মুম্বই: শুক্রবার সুরাত থেকে মুম্বই যাওয়ার পথে স্পাইসজেটের বিমানেই মৃত্যু হল চার মাসের এক শিশু কন্যার। শিশুটির ময়নাতদন্ত হলেও মৃত্যুর কারণ হিসাবে এখনও নিশ্চিত হতে পারেননি চিকিৎসকেরা। দেহের কিছু অংশ পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে স্যর জেজে হাসপাতালে।

মৃত শিশুটির নাম রিয়া। মা প্রীতি জিন্দল এবং দাদু-ঠাকুমার সঙ্গে প্লেনে চেপেছিল সে। পরিবারের অজান্তেই অজ্ঞান হয়ে যায় রিয়া। মুম্বই বিমানবন্দরে পৌঁছলে রিয়া এবং তাঁর মাকে বিমানবন্দরের চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে নিকটবর্তী নানবতী হাসপাতালে নিয়ে গেলে তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকেরা।

এই প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে বিমানবন্দরের এক আধিকারিক জানান, ‘শিশুটির নাড়ি পাওয়া যাচ্ছিল না। কৃত্রিমভাবে হৃদযন্ত্র চালু করার চেষ্টা করা হয়। কিন্তু তাতেও কোনও সাড়া পাওয়া যায় নি। শিশুটিকে নিকটবর্তী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকেরা।’

নানাবতী হাসপাতালের চিকিৎসকেরা এই বিষয়ে মন্তব্য করতে অস্বীকার করেন। সূত্রের খবর, শিশুটির মা চিকিৎসকদের জানান সকাল সাড়ে পাঁচটায় বাচ্চাটিকে খাইয়ে ঘুম পাড়িয়ে দেন। শিশুটি নড়াচড়া করছে না দেখে প্রথমে ঘুমিয়ে আছে ভেবে বিমানকর্মীদের কিছু জানাননি পরিবারের সদস্যরা। কিন্তু,বিমান মুম্বই নামার পরেও কোনও সাড়া না পাওয়ায় সন্দেহ জাগে পরিবারের। বিমানকর্মীদের জানাতেই জরুরী ভিত্তিতে চিকিৎসাকেন্দ্রে আনা হয় শিশুটিকে। কিন্তু ততক্ষণে অনেক দেরি হয়ে গিয়েছিল।

পুলিশ সূত্রে জানানো হয়, একটি অস্বাভাবিক মৃত্যুর রিপোর্ট রেজিস্টার করা হয়েছে। ময়নাতদন্তে কোনও প্রমাণ না মেলায় শিশুটির দেহের কিছু অংশ জেজে হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে পরীক্ষা করা হবে।’ স্পাইসজেটের তরফে জানানো হয়, বিমান মুম্বইয়ের মাটি ছোঁওয়ার মুহূর্তেই আমরা খবর পাই বিমানের থাকা এক শিশু অজ্ঞান হয়ে পড়েছে। এটিসিকে জানিয়ে আমরা দ্রুত শিশুটি এবং তাঁর পরিবারের সদস্যদের প্লেন থেকে নামিয়ে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। প্রথমে শিশুটির ময়না তদন্ত করা হয় ডাক্তার আরএন কুপার মিউনিসিপ্যাল জেনারেল হাসপাতালে। সেখানে মৃত্যুর কোনও কারণ পাওয়া যায়নি।