স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: পুরনো স্পেস থিয়েটারেই আরও সজীব হল আদিম জীব থেকে ভবিষ্যতের মানুষ৷ সোমবার সায়েন্স সিটিতে বহু প্রতীক্ষীত থ্রিডি ডিজিটাল থিয়েটার নতুন রূপে চালু হল। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী এর সূচনা করলেন। যদিও সশরীরে উপস্থিত ছিলেন না কেন্দ্রীয় সংস্কৃতি মন্ত্রী মহেশ শর্মা। ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে তিনি এর সূচনা করেছেন। উল্লেখ্য, এক বছরের বেশি সময় ধরে এই বিশেষ থ্রিডি থিয়েটার বন্ধ ছিল।

সায়েন্স সিটি কর্তৃপক্ষের তরফে জানানো হয়েছে, অ্যাস্ট্রোটেক নামে মার্কিন সংস্থাকে দিয়ে সেখানে লাগানো হয়েছে অত্যাধুনিক থ্রিডি স্ক্রিন। সঙ্গে বসেছে ক্রিস্টি ডিজিটালের ৬টি প্রেক্ষণযন্ত্র। ব্যবহার করা হয়েছে কার্ল জাইজেস অপটিক্স৷ যা কাজ করবে একসঙ্গে।

গত ২ দশক ধরে প্রায় ৭২ লক্ষ মানুষ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি নির্ভর নানা তথ্যচিত্র দেখেছেন এই স্পেস থিয়েটারে। সায়েন্স সিটির অন্যতম আকর্ষণ অর্ধগোলাকৃতি এই প্রেক্ষাগৃহ। শুধু বাইরে থেকে নয়, প্রেক্ষাগৃহের চিত্রপটটিও গোলাকার। এতদিন সেখানে ছবি দেখানো হত পুরনো টুডি প্রযুক্তিতে। যার থেকে বর্তমান থ্রিডি প্রযুক্তিতে আরও স্পষ্ট ও প্রাণবন্ত বলে দাবি সায়েন্স সিটি কর্তৃপক্ষের।

সায়েন্স সিটিতে এই বিশেষ থিয়েটারের জনপ্রিয়তা ভালোই ছিল। ডায়নোসরদের বিবর্তনের ইতিহাস জানার চেয়ে এই থ্রিডি শো দেখার প্রতিই বেশি ঝোঁক ছিল দর্শকদের। সায়েন্স সিটি কর্তৃপক্ষের দাবি, ভারতীয় উপমহাদেশে এমন থিয়েটারের দ্বিতীয় সংস্করণ মিলবে না।