লখনউ: আইন রক্ষা করা তাদের কাজ৷ মানুষকে আইন মোতাবেক কাজ করার পরামর্শ দিতে দেখা যায় তাদের৷ সেই পুলিশের বিরুদ্ধেই উঠল ট্রাফিক আইন ভঙ্গের অভিযোগ৷ এক বা দু’জন নয়৷ ট্রাফিক আইন না মানায় নিয়ম মেনে ৩০৫ পুলিশ কর্মীকে জরিমানা করল তাদেরই সহকর্মীরা৷

গত শুক্রবার উত্তরপ্রদেশের রাজধানী লখনউতে সারা দিন ব্যাপী ট্রাফিক আইন নিয়ে প্রচার চলে৷ সেই সঙ্গে চলে ধরপাকড়ও৷ ট্রাফিক আইন উলঙ্খনকারীকে জরিমানাও করা হয়৷ তাদের মধ্যে ৩০০র বেশি ছিলেন উর্দিধারীরা৷ খোদ পুলিশ কর্মীদের মধ্যে ট্রাফিক আইন না মানার প্রবণতা দেখে অবাক শীর্ষ কর্তারাও৷ তাঁরা জানিয়েছেন, এতে সাধারণ মানুষের কাছে পুলিশ সম্পর্কে ভুল বার্তাই পৌঁছবে৷ তবে শীর্ষ কর্তারা এটাও জানিয়েছেন, একটা জিনিস অন্তত পরিস্কার হল৷ পুলিশের একটা বড় অংশের মধ্যে ট্রাফিক আইন না মানার প্রবণতা আছে৷ সেই মানসিকতায় বদল আনতে হবে৷ পুলিশ যে আইনের উর্ধ্বে নয় সেটা তাদেরও বুঝতে হবে৷

একই কথা বলেছেন লখনউয়ের এসএসপি কালানিধি নৈথানি৷ আইন সবার জন্য এক৷ পুলিশ বলে কেউ পার পাবে না৷ ট্রাফিক পুলিশরদের স্পষ্ট নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল, আইন ভাঙলে তাকে যেন জরিমানা করা হয়৷ আইনভঙ্গকারী যদি পুলিশ কর্মী হন তাকেও জরিমানার চালান ধরাতে হবে৷ গত শুক্রবার মোট ৩১১৭ জনকে জরিমানা করেছে লখনউ ট্রাফিক পুলিশ৷ অধিকাংশই বাইক আরোহী৷ অভিযোগ, তাদের কারোর মাথায় হেলমেট ছিল না৷ যে ৩০৫ পুলিশ কর্মীকে জরিমানা করা হয়েছে তাদের মধ্যে ১৫৫ জন আবার নিজেরাই ট্রাফিক পুলিশ বা কনস্টেবল পদে কর্মরত৷ বিষয়টি সামনে আসায় চরম বিড়াম্বনায় লখনউ ট্রাফিক পুলিশ৷

ধরপাকড় অভিযান ওই একদিনেই সীমাবদ্ধ থাকবে না৷ মাঝে মধ্যেই এই অভিযান চলবে বলে জানান এসএসপি কালানিধি নৈথানি৷ জানান, বাইক আরোহীদের ক্ষেত্রে হেলমেট পড়া ছিল কিনা সেটা দেখা হয়েছে৷ আপাতত কয়েকদিন এই নিয়ে অভিযান চলবে৷ পরে চার চাকার গাড়ির চালকরা সিট বেল্ট পড়ে আছেন কিনা সেটার উপর অভিযান শুরু হবে৷ প্রথম দিনের অভিযানে জরিমানা বাবদ আয় হয়েছে ১ লক্ষ ৩৮ হাজার টাকা৷