ফাইল ছবি

দিসপুর: মর্মান্তিক দুর্ঘটনার সাক্ষী থাকল অসমের কামরূপ জেলা। সেখানে লাইন পারাপার করতে গিয়ে ধেয়ে আসা একটি ট্রেনের মুখোমুখি পড়ে গেল একটি প্রাইভেট গাড়ি। দুর্ঘটনার জেরে মৃত্যু হল একই পরিবারের তিনজনের। আহত আরও একজন। রবিবার এই ঘটনা ঘটেছে বলে জানাচ্ছে পুলিশ।

জানা গিয়েছে গত কয়েকদিনের বৃষ্টির জেরে আন্ডারপাসে জল জমে যাওয়ার কারণে গাড়ি নিয়ে রেললাইন পারাপার করছিলেন ওই পরিবার। সে সময়ই ধেয়ে আসে বঙ্গাইগাঁওগামী ট্রেনে। ঘটে যায় মর্মান্তিক দুর্ঘটনা।

দুর্ঘটনায় ওই পরিবারের তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। আবদুল জলিল নামে মৃত ব্যক্তি ফখরুদ্দিন আলী আহমেদ কলেজের অসমিয়া বিভাগের কর্মী বলে জানা গিয়েছে। একই সঙ্গে মৃত্যু হয়েছে তাঁর স্ত্রী সানিয়ারা বেগম এবং তাদের ১২ বছরের মেয়ে আফরিন আক্তারের।

পুলিশ মারফৎ খবর, ওই দুর্ঘটনায় আহত হয়েছে দম্পতির ৪ বছরের ছোট মেয়ে। সে বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বলে জানা গিয়েছে।

দুর্ঘটনার পরে স্থানীয়রা রেল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন ও ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান।

বিস্তারিত আসছে…

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.