স্টাফ রিপোর্টার, মুর্শিদাবাদ: ফের মুর্শিদাবাদে পুলিশের জালে ধরা পরল তিন জাল নোট কারবারী৷ জাল নোটের রমরমা বাজার বন্ধ করতে মুর্শিদাবাদ সীমান্ত পুলিশ তৎপর৷ রবিবার রাতভর সামসেরগঞ্জ থানার ওসি অমিত ভকত এর নেতৃত্বে বিশাল পুলিশবাহিনী টানা অভিযান চালিয়ে জালনোট সহ ভিন রাজ্যের জাল নোটকারবরীদের গ্রেফতার করে৷

মুর্শিদাবাদের সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ খুব সহজ উপায় ভেবে নিয়েই জাল নোটের কারবারীরা মুর্শিদাবাদেরই উত্তরের জনপদগুলিকে ‘সফট টার্গেট’ হিসেবে চিন্হিত করে৷ জাল নোট পাচার চলে রমরমিয়ে৷ ধূলিয়ান ফেরিঘাট, ডাকবাংলো মোড়, সুতি, ফারাক্কা৷ নামের তালিকার শেষ নেই৷ জেলা পুলিশও সমান তালে ধারাবাহিক ভাবে তাদের নিজেস্ব নেটওয়ার্ককে কাজে লাগিয়ে একের পর এক জালনোট কারবারী ও জালনোট পাকরাওয়ের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে৷ তার পরেও পুরপুরি বন্ধ হয়নি এই কারবার৷ এমনকি জেলার বাইরে থেকে এসেও এই বেআইনী ব্যবসায় হাত লাগিয়েছে অনেকে৷

যদিও নোটবন্দির পরে সীমান্তে পুলিশ কার্যত জির টলারেন্স পদক্ষেপ নিয়ে জালনোট চক্র বন্ধের পথেই এগোচ্ছে৷ রবিবার রাতের পুলিশের হানায় তিন জাল নোট কারবারীর গ্রেফতারে জাল নোটচক্রের রমরমা খানিকটা হলেও আটকে গেল৷ ধৃতদের মধ্যে রবিউল ইসলাম ও মোজাম্মেল হকের বাড়ি ভিনজেলা বীরভূমের ইলামবাজার এলাকায় বলে জানা গেছে৷ অন্যদিকে গ্রেফতার হওয়া শামসুল শেখের বাড়ি মুর্শিদাবাদের দৌলতাবাদ এলাকায়৷

এদের সকলের কাছ থেকে ভারতীয় ২০০০টাকা নোটের মোট ৪০ টি জাল নোট উদ্ধার করা হয় ৷শংকর দাস: শুরু হয়ে গিয়েছে কাউন্ট ডাউন। আর মাত্র হাতে গোনা কয়েকটা দিন বাকি তারপরেই বালুরঘাটের আত্রেয়ী পাড়ে গড়ে উঠবে আস্ত মহেশমতি। যার ভেতরে দেখা মিলবে অমরেন্দ্র থেকে শুরু করে কাটাপ্পা ও ভল্লার। এমনকি থাকছেন রাজকুমারী দেবসেনা থেকে শুরু করে স্বয়ং মহেশমতির রাজমাতা রাজেশ্বরীও। হ্যা ঠিকই বুঝেছেন সাম্প্রতিক কালের সারা ফেলে দেওয়া সিনেমা বাহুবলী-২ এর সেই রাজমহল মহেশমতি’র কথাই এখানে বলা হচ্ছে। এবারের শারোদোৎসবে বালুরঘাটের আত্রেয়ী নদীর তীরে অবস্থিত প্রগতী সংঘের পূজা প্যান্ডেল গড়ে তোলা হচ্ছে হিন্দি সিনেমা “বাহুবলী-২” এর সেই মহেশমতি’র আদলে।

সোমবার উল্টোরথের দিন প্রগতী সংঘের খুঁটি পূজার মধ্য দিয়ে শুরু হয়ে গেলো মহেশমতি রাজমহল গড়ে তোলার কাজ। চকভৃগু বাসট্যান্ড লাগোয়া মাঠে এদিনের খুঁটি পূজা উপলক্ষে বিশেষ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দক্ষিণ দিনাজপুরের পুলিশ সুপার প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়। পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া আত্রেয়ী নদীতে খুঁটি স্নান করিয়ে তা মাটিতে পুঁতে মহেশমতির আদলে প্যান্ডেলের শুভসূচনা করেন পুলিশ সুপার।

পুলিশ সূত্রে খবর, বিগত তিন মাসে সামসেরগঞ্জ থেকে প্রায় ২২ লক্ষ টাকার জালনোট উদ্ধার করা হয়, প্রায় ৩১ জন জালনোটের কারবারীকেও গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে পুলিশ৷ এমনকি যার মধ্যে কয়েক জন বাংলাদেশীও রয়েছে ৷ ধৃত তিনজনকে বিস্তারিত জেরা করে বাকিদের নাগাল পেতে পুলিশ ৫ দিনের পুলিশি হেফাজত চেয়ে সোমবার দুপুরে জঙ্গিপুর আদালতে পেশ করে৷