কলকাতাঃ  ‘গণতন্ত্রের থাপ্পড়’ হারে হারে টের পেলেন তৃণমূল সুপ্রিমো৷ বলেছিলেন বাংলায় ৪২-এ ৪২ পাবে তৃণমূল৷ বাস্তবে বল অন্য৷ পাঁচ বছরেই বিজেপির আসন ২ থেকে বেড়ে দু অঙ্কে৷ বাংলায় গেরুয়া ঝড়ে কার্যত কুপোকাত তৃণমূল। বাংলায় তৃণমূলের এহেন শোচনীয় পরাজয়ে গোটা দিন বাড়ির বাইরেই এলেন না মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু এই গেরুয়া ঝড়ের দাপট সামলেও তৃণমূলের যে ২২ জন মান রাখল তৃণমূলের জেনে নিন তাঁদের

আরামবাগ- অপরুপা পোদ্দার, বারাসত- কাকলি ঘোষদস্তিদার, বর্ধমান পুর্ব- সুনীল মন্ডল, বসিরহাট- নুসরত জাহান, বীরভুম-শতাব্দী র‍ায়, বোলপুর-অসিত কুমার মাল, ডায়মন্ডহারবার-অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, দমদম-সৌগত রায়, ঘাটাল- দেব। হাওড়া-প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়, যাদবপুর- মিমি চক্রবর্তী, জঙ্গিপুর-খলিলুর রহমান, জয়নগর-প্রতিমা মন্ডল, কাথি-শিশির অধিকারী, কলকাতা দক্ষিণ- মালা রায়, কলকাতা উত্তর- সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়, কৃষ্ণনগর-মহুয়া মৈত্র, মথুরাপুর-চৌধুরী মোহন জাটুয়া, মুর্শিদাবাদ- আবু তাহের খান, শ্রীরামপুর-কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়, তমলুক- দিব্যেন্দু অধিকারী, উলুবেড়িয়া-সাজদা আহমেদ