২.৩৫: শেষ হল শহিদ দিবসের সমাবেশ। মঞ্চ ছাড়লেন মুখ্যমন্ত্রী।

২.৩৩: দেব-সোহম হাত নেড়ে সমর্থকদের বিদায় জানালেন।

২.৩২: এখানে মিটিং শেষ। খুব ভালো। মেনি মেনি থ্যাঙ্কস।

২.২৮: এবার জন গণ মন হবে: মমতা

২.২৭: বাংলাকে আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে: মমতা

২.২৭: আম যেমন আঁচল দিয়ে সন্তানকে রক্ষা করে, সেইভাবে রক্ষা করতে হবে। নমস্কার। জয় হিন্দ। আবার দেখা হবে: মমতা

২.২৬: ২০১৬ বিধানসভা নির্বাচনের তোড়জোড় শুরু করে দিল তৃণমূল। মঞ্চ থেকে মুখ্যমন্ত্রীর আবেদন- মানুষের প্ররোচনায় কান না দিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসকে জয়ী করুন।

২.২৩: আমরা চলবো নতুন সুরে, বাংলা গড়বো নতুন করে: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

২.১৯: সমর্থকদের উদ্দেশে স্লোগান দিচ্ছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। “আমি দু ঘণ্টা বক্তৃতা দিয়েছি। তোমাদের গলার জোর কই”?

২.১৮: বন্দে মাতরম। এবার আমরা স্লোগান দেব। এটা তৃণমূলের রীতি। প্লিজ টেক কেয়ার। যারা হাওড়া, শিয়ালদহ ও কলকাতা স্টেশনের দায়িত্বে- তারা নিজেদের দায়িত্ব পালন করুন। আস্তে আস্তে যাবেন তো? স্লোগান শিখিয়ে দি: মমতা

২.১৭: রোটি-কাপড়া-মকান, এটাই তৃণমূলের সবচেয়ে বড় স্লোগান। সতর্ক থাকতে হবে, নির্বাচন এলে অনেক অনেক দুষ্টুমি করে।

২.১৬: একটা গান আছে, এবার তোর মরা গাঙে বাণ এসেছে। কিন্তু তোদের মরা গাঙে কখনও জোয়ার আসবে না। বিরোধীদের উদ্দেশে মমতা

২.১৪: কয়েক লাখ মানুষ এসেছেন। কত লোক এসেছেন? ২০-৩০ না ৪০ লক্ষ? কলকাতার মানুষ, কলকাতার মেয়র শোভনকে আবার কাজ করার সুযোগ করে দিয়েছেন। তাই শোভনকেও আমি অভিনন্দন জানাচ্ছি।

২.১০: সিন্ডিকেট করতে হলে তৃণমূলে থাকা চলবে না।

২.০৭: আমি সবসময় ছোটদের এগিয়ে দিই। কারণ, আমরা যখন যুব রাজনীতি করতাম, কেউ আমাদের সাহায্য করতে এগিয়ে আসত না: মমতা

২.০৬: ছোটরা কখনও একটু দামাল হয়ে যায়। ওদের রোখা যায় না। ওদের বলব, শিক্ষকদের সম্মান করতে হবে।

২.০৬: এত ভিড় হয়েছে। আমি সামলাতেই হিমশিম খাচ্ছি। তবু আপনারাই তো লক্ষ্মী। স্ট্যাম্পেড করবেন না।

২.০৫: সিপিএম-কংগ্রেস-বিজেপি সবাই বড়লোক হয়ে গেছে। সবাই এক হয়ে গেছে।

২.০৪: একা লড়ব, কারুর ভিক্ষে চাই না। দয়া চাই মানুষের। দোয়া চাই মানুষের: মমতাCKbMI5qUsAASyG1

২.০৪: দরকার হলে রাস্তায় বসে সরকার চালাব। তবু মাথা নোয়াব না: মমতা

২.০৩: আগামী বছর বাংলায় নির্বাচন। আগাম ঘোষণা থাকল, ২০১৬ -য় এমন একটা সভা করব যেটা সব রেকর্ড ভেঙে দেব: মমতা

২.০০: যারা বাংলার মাটিতে সাম্প্রদায়িকতার খেলা খেলছো, তারা মনে রেখো আমরা চাইলেই সব বেড়ালের গলায় ঘণ্টা বাঁধতে পারি: মমতা

১.৫৯: বিজেপি-কংগ্রেস-সিপিএম তোমরা সবাই সেম সেম। তোমাদের হ য ব র ল হয়ে গেছে। বাংলার মাটিতে তৃণমূল মনে করে আমরা লড়তে চাই- তারা পারে। তারা করে দেখিয়েছে। প্রতি ইঞ্চিতে আমাদের আন্দোলন চলে। আগে আন্দোলন ছিল সিপিএমের বিরুদ্ধে, এখন চলছে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে: মমতা CKbLgdPUsAAvLce

১.৫৬: মিডিয়া খেল রসগোল্লা। মানুষ পেল গোল্লা: মমতা

১.৫৬: সবাই যখন লড়াই করে, বাংলা তখন এগিয়ে যায়: মমতা

১.৫৬: ৭০ হাজার শিক্ষক নিয়োগ করা হবে এবছর: মমতা

১.৫৪: চার বছরে ৩৯ লক্ষ চাকরি হয়েছে:মমতা

১.৫৪: ৬৬ বছরে কটা কলেজ হয়েছিল? মাত্র চারটি। আমাদের সময়ে ৬০টির ও বেশি: মমতা

১.৫৩: ১০০ টা ন্যায্যমূল্যের ওষুধের দোকান হয়ে গিয়েছে। বাচ্ছাদের চিকিৎসার সুযোগ ছিল না। সিপিএমের আমলে। আমাদের সময় কতগুলি হয়েছে?: মমতা

১.৫৩: ফ্রি মেডিসিন, ফ্রি বেড- একমাত্র বাংলা দেয়: মমতা

১.৫১: দিল্লি বলছে বেটি বাঁচাও বেটি পড়াও। কিন্তু করে দেখাল কে? বাংলা। ওদের বাজেট কত? ১০০ কোটি। ওদের প্রচারের খরচ কত? ৫০ কোটি? সবাই কি মাদুলি পাবে?

১.৫০: সবাই আজ বাংলাকে নিয়ে গর্ব করছে। দিল্লি প্রচার করছে স্বচ্ছ ভারত! আর করে দেখাল কে? বাংলা। নদিয়া থেকে বীরভূম- করে দেখাচ্ছে আচ্ছা বাংলা: মমতা

১.৪৮: ১৪ অগাস্ট মোট ২৪ লক্ষ গার্ল চাইন্ডকে কন্যাশ্রীর আওতায় আনা হবে: মমতা

১.৪৮: কোনও গরিব-সাধারণ মানুষ যে বাদ না পড়ে। ৬ কোটি মানুষকে ৩ টাকা কিলো দরে চাল দেব: মমতাCKbJDFPUwAAgc9e

১.৪১: পুলিশ কিছুতেই কথা শোনে না। আমি বক্তৃতা দিতে গেলেই কেন হয় এরকম? আমি কিন্তু সিসিটিভিতে দেখব। আই উইল টেক অ্যাকশন: মমতা

১.৪১: উৎসাহ থাকা ভালো, বেশি উৎসাহ ভালো না: উত্তেজিত মমতার ধমক বিশৃঙ্খল জনতাকে

১.৪০: আমরা ইমামদের ভাতা দিই, আমরা জঙ্গলমহলকে ২ টাকায় চাল দিই: মমতা

১.৩৮: ৩৫ বছর কী কানে দিয়েছিলে তালা: মমতা CKbBGnIUkAA0MKq

১.৩৮: লড়াই করতে পারে করো, গড়তে পারল গড়ো। না পারলে মুখে লিপস্টিক লাগিয়ে চুপ করে বসে পড়ো: মমতা

১.৩৬: ঝড়কে আমি করব মিতে, ডরব না তার ভ্রুকুটিতে: মমতা

১.৩৫: খুনের বদলে খুন, মারার বদলে মারা আমাদের রাজনীতি নয়: মমতা

১.৩৪: বাংলাকে ভাগ করা যাবে না: মমতা

১.৩২: একসময় রক্তের হোলি খেলা চলেছিল। ২১ জুলাই বামেদের রক্ত খেলা। যেমন সিঙ্গুর, নন্দীগ্রামকে কেন্দ্র করে শুরু করতে চেয়েছিল ওরা। মনে রাখবেন, আজ সাইবাড়ির মহান পরিবার এসেছেন। নেতাইয়ের পরিবার এসেছে। খাদ্য আন্দোলনের শহিদের পরিবার এসেছে: মমতা

১.৩০: ২১ মানেই ফিরে দেখা, আন্তরিকতার ছোঁয়া, ২১ মানে ছাত্র, ২১ মানে মহিলা, কৃষক, এসসি, ওবিসি, মা-মাটি-মানুষ, দিশা, আন্দোলন, তৈরি করা, লড়াই করা: মমতা

১.৩০: এবারের ২১ জুলাইয়ের সবথেকে বড় চমক মা-মাটি-মানুষ। তিনটের মধ্যে মিটিং শেষ হয়ে যাবে। দয়া করে শান্ত হয়ে বসুন: মমতা

১.২৮: বক্তব্য শুরু করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

১.২৭: মহাশ্বেতাদিকে নামিয়ে দিই, এক মিনিট প্লিজ: মমতা। প্রবীণ লেখিকার সঙ্গে কুশল বিনিময় মমতার।

১.২৫: আপনারা একসঙ্গে থাকুন। মমতা যা কাজ করেছে, দেশের কোনও মুখ্যমন্ত্রী তা করেনি: মহাশ্বেতা দেবী

১.২৪: রাজ্যের মানুষকে একটাই বার্তা দেব, রাজ্যের উন্নয়ন একজনই করতে পারেন। তাঁর নাম মতা বন্দ্যোপাধ্যায়: মহাশ্বেতা দেবী CKbAPK-UkAADCKX

১.২৪: অসুস্থ মহাশ্বেতা দেবীকে বরণ করলেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী।

১.২২: নচিকেতা গাইছেন, ‘তুমি আসবে বলেই’।

১.১২: কারা করছে এরকম? আমি কিন্তু ক্যামেরায় সব নজর রাখছি।

১.১২: মঞ্চ থেকে নেমে সভাস্থল পরিদর্শনে মমতা।

১.১২: মেজাজ হারালেন মুখ্যমন্ত্রী। CKa_7r_VEAE5aUo

১.১১: চন্দ্রিমাকে থামিয়ে জনতাকে থামাতে উদ্যোগ নিলেন মমতা। বললেন, আমি ক্যামেরায় নজর রাখছি। জনতাকে বসে পড়ার নির্দেশ।

১.০৮: মোদীকে সরাসরি হুঁশিয়ারি সুদীপের। সূর্যকে ছুঁলে হাত জ্বলে যাবে বলে কটাক্ষ।

১.০৫: দিদি’কে দেখতে পেয়ে উদ্বেল হয়ে উঠল জনতা। হাত নেড়ে শান্ত হওয়ার আবেদন মুখ্যমন্ত্রীর।

১.০৫: মঞ্চে এলেন খোদ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ও তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। CKa-asvUcAA_eJd

১.০৪: মুখ্যমন্ত্রী নবান্নে ভীষ্মের মতো যতদিন ইচ্ছে ততদিন থাকবেন: সুদীপ

১.০৪: ওই লাল ঝান্ডা আপনাদের হাতে বইতে ইচ্ছে করবে না: সুদীপ

১.০২: গতকাল সিপিএম একটা মিছিল করেছিল। সূর্যকান্ত বলেছিলেন, যে মুখ্যমন্ত্রীকে প্রমান করতে হবে তিনি নীল না সাদা। আমি বলি সেটা বাংলার মানুষ ২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনে তিনি বুঝিয়েও দেবে তিনি ২৫০ আসন অতিক্রম করবেন। আমাদের লক্ষ্য ২৯৪: সুদীপ

১.০২: সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে মঞ্চে আহ্বান।

১.০১: মমতা কোনওদিকে তাকাচ্ছেন না। শুধু উন্নয়ন: সুব্রত

১.০০: গুণ্ডা অধীরের সঙ্গে মানুষ নেই। বিরোধী সিপিএমের সঙ্গে মানুষ নেই: সুব্রত

১২.৫৭: সামান্য বিশৃঙ্খল হয়ে উঠেছে জনতা। তাদের শান্ত করার উদ্যোগ নিলেন সুব্রত। অভিষেককে ‘স্নেহভাজন’ বলে ডাক।

CKa0dJFUkAA8UDN
মঞ্চে তখন সুব্রত বক্সী

১২.৫৬: বক্তব্য পেশ করতে উঠলেন প্রবীণ তৃণমূল নেতা সুব্রত মুখোপাধ্যায়।

১২.৫৪: আজকের প্রধান বক্তার অপেক্ষায় আমরা সকলে রয়েছি। আমি বক্তৃতা দীর্ঘায়িত করব না। ২০১১ সালে যেভাবে জিতেছি, ২০১৬ তেও ইতিবাচক ভোটে জেতার আশা করছি: শুভেন্দু

১২.৫৩: মঞ্চে উঠলেন শুভেন্দু অধিকারী।

১২.৫২: মঞ্চে দেবকে দেখতে পেয়ে উত্তাল হয়ে উঠল উপস্থিত জনতা।

১২.৫১: মমতা সরকারের সাংসদরা বারেবারে সংসদে সরব হয়েছে। আগামী ২০১৬-য় আমরা এমনভাবে ঐক্যবদ্ধ হয়ে লড়ব যাতে বিরোধীরা মাথা তুলতে না পারে। ফেরত চাই বন্দুক থেকে বেরোনো গুলি, হারিয়ে যাওয়া সময়: অভিষেক

১২.৫০: জ্যোতিবাবুরা আজ বেঁচে থাকলে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে দেখে যেতে পারত: অভিষেক

১২.৪৮: যারা ভাবছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে কুৎসা করে তাঁকে রোখা যাবে, তাদের বলি মমতা একজন মহিলা নন, তিনি বাংলার মানুষের আবেগ: অভিষেক

১২.৪৬: বিরোধীপক্ষ  সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে হাত মিলিয়েছে। তাদের চোখে প্রগতি পড়ে না। তাদের চোখে ঝকঝকে তকতকে রাস্তাঘাট পড়ে না। তাদের চোখে জঙ্গলমহলের উন্নয়ন পড়া। তাদের চোখে জমির পাট্টা পড়ে না। তাদের চোখে ওষুধের দোকান পড়ে না: অভিষেক

১২.৪৫: জোরালো ভাষায় বক্তৃতা শুরু করলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

১২.৪৩: বক্তব্য পেশ করতে উঠছেন আজকের সমাবেশের কর্মসচিব অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। CKa1upvUsAAjPPV

১২.৪৩: মিডিয়ায় বেঁচে থাকা বেঁচে থাকা নয়, মানুষের সঙ্গে থাকাই আসল বাঁচা: ফিরহাদ

১২.৪২: একাংশের মিডিয়া, কিছু দালাল, দিল্লির প্রশাসনিক কর্তাদের একাংশ যতই চেষ্টা করুক না কেন, গরিব মানুষ জানেন তাদের পাশে মমতা সবসময় রয়েছে: ফিরহাদ

১২.৪১: বাংলার মানুষ বিরোধীদের ভাগিয়ে দিয়েছে। তাদের আর কোনও অস্তিত্ব নেই। বাংলার রায় বুঝিয়ে দিয়েছে, মমতা তুমি এগিয়ে দাও। আমরা তোমার সঙ্গে আছি: ফিরহাদ

১২.৪০: মঞ্চে বক্তৃতা পেশ করতে উঠলেন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম।

CKazPr-UMAAAHR6
মঞ্চে যুবরাজ

১২.৩০: তৃণমূল কংগ্রেস কৃষকদের জমি কেড়ে নেয় না: সৌগত

১২.২৯: মমতা মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পর পুলিশকে গুলি চালাতে হয়নি: সৌগত

১২.২৮: নেতাইয়ে আমাদের ৮ জন কর্মী সিপিএমের গুলিতে নিহত হয়েছিলেন। আমরা সে কথাও ভুলে যায়নি: সৌগত

১২.২৬: আমাদের কর্মীদের উপর বিনা প্ররোচনায় সিপিএমের পুলিশ গুলি চালিয়েছিল: সৌগত

১২.২৫: আমাদের নেত্রী মমতা স্ময়ং পুলিশের লাঠির আঘাতে হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন: সৌগত CKa01dqUsAEmPbz

১২.২৪: এবার সভা সমস্ত রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে। অর্ধেক মানুষই এখনও সভাস্থলে পৌঁছতে পারেনি: সৌগত

মঞ্চে উপস্থিত শহিদদের পরিবার
মঞ্চে উপস্থিত শহিদদের পরিবার

১২.২৪: অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, সুব্রত বক্সী ও তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে শুভেচ্ছা জানিয়ে বক্তব্য শুরু করলেন সৌগত রায়।

১২.২৩: সভায় প্রথম বক্তব্য পেশ করতে উঠলেন সাংসদ সৌগত রায়।

১২.২২: তোমায় হৃদমাঝারে রাখব- গানে গানে ধর্মতলা মাতিয়ে দিলেন ইন্দ্রনীল সেন।

১২.১৯: মঞ্চে গান গাইতে উঠলেন ইন্দ্রানীল সেন।

১২.১১: মঞ্চে উপস্থিত তৃণমূলের মহিলা নেত্রী ব্রিগেড। 21 july

১২.০৮: শান্তনু রায়চৌধুরীর কন্ঠে ‘আগুনের পরশমণি’ গানের মাধ্যমে শুরু হল শহিদ দিবসের সমাবেশ।

১২.০৭: প্রয়াত তৃণমূল নেতা অনিল মুখোপাধ্যায়ের স্মৃতিতে এক মিনিট নীরবতা পালন করে শহিদ দিবস সমাবেশের উদ্বোধন করলেন দলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক সুব্রত বক্সী।

১২.০৩: এই সভা স্পর্শকাতর। ১৩ জন যুবকের আত্মবলিদান এই সভার ভিত্তি। মানুষের অধিকার দিতে গিয়ে আমাদের সমর্থকেরা শহিদ হয়েছেন। ওই ১৩ জন সহকর্মীকে স্মরণ করেই শুরু হবে এই সভা।

১২.০২: মঞ্চে বক্তব্য পেশ করছেন তৃণমূল সাংসদ ও সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক সুব্রত বক্সী।

১২.০০: ২১ জুলাইয়ের মঞ্চে তৃণমূলে যোগ দিতে চলেছে সিপিএম বিধায়ক বুলুচিক বারিক। তিনি মালের সিপিএম বিধায়ক।

১১.২৯: মঞ্চে উঠেছে তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়। অগণিত সমর্থকদের প্রতি শুভেচ্ছা বার্তা দিলেন পার্থবাবু। তিনি বলেন, “জঙ্গলমহল থেকে বহু মানুষ এসেছেন। এসেছেন দুই বঙ্গ থেকেই। তাদের ধন্যবাদ দিয়ে ছোট করব না।”

ধর্মতলা থেকে টাটকা ছবি
ধর্মতলা থেকে টাটকা ছবি

১১.২৪: মঞ্চে শুরু হয়েছে দেশাত্মবোধক গান।

১১.১৫: ভ্যাপসা গরম ও রোদের হাত থেকে বাঁচতে ছাতা মাথায় সমর্থকেরা মঞ্চের পাশে ভিড় জমিয়েছেন।

১১.০০: মঞ্চে নিহত শহিদদের বেদিতে মালা পড়ানো হয়েছে।

১০.৪৫: চলছে শেষ মুহুর্তের প্রস্তুতি। নিরাপত্তা ব্যবস্থা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। CKavWeNUsAAnZAv

১০.৩০: ধর্মতলায় উড়ছে ড্রোন। আকাশপথে নজর রাখতে পুলিশি নজরদারির আধুনিকতম সংযোজন।