স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: করোনা ভাইরাসের জেরে এবছর ২১ জুলাই, শহিদ দিবসের সভা ধর্মতলায় না করার সিদ্ধান্তই নিল রাজ্যের শাসকদল। শুক্রবার কালীঘাটের বাড়িতে দলীয় বৈঠক করে এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এবার প্রতিটি বুথে সর্বোচ্চ ২৫ জন নেতা, কর্মী, সমর্থককে নিয়ে শহিদ দিবস পালন করার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। কলকাতায় জমায়েত নয়। করোনাভাইরাস নিয়ে লড়াইয়ের মাঝে একুশে জুলাই যে কলকাতায় ফি বছরের মতো শহিদ দিবসের সমাবেশ হবে না সেটা আগেই জানিয়ে দিয়েছিলেন তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

তখন মনে করা হয়েছিল এবার বুঝি বিজেপির কায়দায় সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে ভার্চুয়াল সমাবেশ করবে তৃণমূল কংগ্রেস। কিন্তু শুক্রবার দলীয় সভায় যা ঠিক হয়েছে বলে খবর তাতে মমতা চাইছেন, বিজেপির অনুকরণ নয়। এবার রাজ্যের সব বুথে আলাদা করে হবে শহিদ দিবস পালন।

উল্লেখ্য, এনিয়ে দ্বিতীয়বার ২১ জুলাই ধর্মতলায় সমাবেশ হচ্ছে না। সেটা ছিল ২০১১ সাল। রাজ্যে তৃণমূল সরকারের প্রথম ক্ষমতায় আসার বছর। সেবার শহিদ দিবস পালিত হয়েছিল ব্রিগেডে। শুক্রবার কালীঘাটের বাড়িতে ভিডিও কনফারেন্সে বৈঠক সেরেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

তিনি জানিয়ে দিয়েছেন, ২১ জুলাই বুথে বুথে পালিত হবে। তাঁর ঠিক করে দেওয়া কর্মসূচি অনুযায়ী, ওইদিন দুপুর ১ টা থেকে ২টো পর্যন্ত বুথে বুথে নেতা, কর্মীরা পালন করবেন শহিদ দিবস। এরপর ২টো নাগাদ কালীঘাট অথবা তৃণমূল ভবন থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে বক্তব্য রাখবেন।

এদিনের বৈঠকেই ঠিক হয়েছে একুশে জুলাই পালনের আগে থেকেই বুথ স্তরে অন্যান্য কর্মসূচি পালন করতে হবে। আর সেটা শুরু হয়ে যাবে আগামী সপ্তাহ থেকেই। ৬ থেকে ১৩ জুলাই সর্বত্র কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ইস্যুতে বিক্ষোভ সংগঠিত করতে হবে নেতা, কর্মীদের।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ