ইসলামাবাদ: ভগবান শ্রীকৃষ্ণের শতাব্দী প্রাচীন সংস্কারে উদ্যোগী হল পাক প্রশাসন। রাওয়ালপিন্ডিতে অবস্থিত ১২১ বছরের পুরনো মন্দির সংস্কারের জন্য দুই কোটি পাকিস্তানী মুদ্রা বরাদ্দ করল স্থানীয় প্রশাসন।

পাক সংবাদপত্র ডন এই খবর প্রকাশ করেছে। সেই প্রতিবেদন অনুসারে জানা গিয়েছে যে ক্রিকেটার শোয়েব আখতারের শহর রাওয়ালপিন্ডিতে অবস্থিত ওই প্রাচীন মন্দির সংস্কার এবং মন্দির সংলগ্ন এলাকা সুন্দর করে সাজিয়ে তুলতে ২০ মিলিয়ন অর্থ বরাদ্দ করেছে পাক পঞ্জাবের রাজ্য প্রশাসন।

পাকিস্তানের দু’টি শহরে রয়েছে কৃষ্ণ মন্দির। একটি রাজধানী শহর ইসলামাবাদে, অপরটি রাওয়ালপিন্ডিতে। দ্বিতীয় মন্দিরটি ১৮৯৭ সালে তৈরি করেছিলেন কাঞ্জি মাল এবং উজাগর মাল রাম রচপাল নামক দুই ব্যক্তি। ১৯৪৭ সালে দেশভাগের সময় বন্ধ হয়ে যায় সেই মন্দিরের দরজা। একই সঙ্গে বন্ধ হয়ে যায় উপাসনা। বছর দুই পরে ১৯৪৯ সালে ফের খোলা হয় মন্দিরের দরজা।

অল্প জায়গা এবং মন্দির সংলগ্ন এলাকায় অনেক দোকান থাকার কারণে অসুবিধা হচ্ছে উপাসনায়। বারবার এমন অভিযোগ করা হচ্ছিল স্থানীয় হিন্দুদের পক্ষ থেকে। বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয় পাক পঞ্জাবের আইনসভাতেও। এরপরেই মন্দির সংস্কারের জন্য অর্থ বরাদ্দ করা হয়। এবং দ্রুত যাবতীয় কাজ সম্পন্ন করার নির্দেশ দেওয়া হয় ইভাকুয়ে ট্রাস্ট প্রপার্টি বোর্ড(ইটিপিবি)কে।

১৯৭০ সাল থেকে ওই মন্দিরের রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে রয়েছে ইটিপিবি। ওই সংস্থার ডেপুটি ডিরেক্টর মহম্মদ আসিফ জানিয়েছেন যে ইতিমধ্যেই কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে। ইটিপিবি-র বিশেষ প্রতিনিধিদল সরেজমিনে গিয়ে সবকিছু দেখেছে। দেবতার মূর্তি সুরক্ষিত রাখতে মন্দিরের প্রধান দরজা এই মুহূর্তে বন্ধ রাখা হয়েছে। সমগ্র কাজ সম্পন্ন হয়ে গেলেই ভক্তদের জন্য মন্দির উন্মুক্ত হবে বলে জানিয়েছেন মহম্মদ আসিফ।